দলীয় প্রশাসন দিয়ে নিরপেক্ষ কর্মকর্তা পাওয়া দুষ্কর – দৈনিক গণঅধিকার

দলীয় প্রশাসন দিয়ে নিরপেক্ষ কর্মকর্তা পাওয়া দুষ্কর

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৯ আগস্ট, ২০২৩ | ৮:৪৪ 41 ভিউ
দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ কর্মকর্তার প্যানেল তৈরি করার নিয়ম রেখে নীতিমালা তৈরির উদ্যোগে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার। দলীয় প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা দিয়ে নিরপেক্ষ ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা বাছাই করা দুষ্কর বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি। সুজন সম্পাদক বলেন, তাদের মাধ্যমেই যদি ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা বাছাই ও ভোটকেন্দ্র নির্ধারণের দায়িত্ব দেওয়া হয়, তাহলে নির্বাচনের নিরপেক্ষতা ও গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে শুধু প্রশ্নই উঠবে না, আগামী নির্বাচন প্রহসনের দিকে ধাবিত হতে পারে। শুক্রবার যুগান্তরকে দেওয়া এক প্রতিক্রিয়ায় তিনি এসব কথা বলেন। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তা বাছাইয়ে ইসির খসড়া নীতিমালা প্রসঙ্গে ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনীর মাধ্যমে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের বিধান ফিরিয়ে আনা হয়েছে। এরফলে প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীতে ব্যাপক দলীয়করণ হয়েছে। বিশেষ করে ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং স্থানীয় সরকারের অনেক নির্বাচনের ফল বহুলাংশে তারা নিয়ন্ত্রণ করেছে। ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, নির্বাচন কমিশন গঠনের পর থেকে অনেক বিতর্কিত কাজ করেছে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে কুমিল্লা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে শেষ কয়েকটি কেন্দ্রের ফল সব শেষে ঘোষণা করা হয় যা সার্বিক ফলাফলকেই পরিবর্তন করে দিয়েছে। গাইবান্ধা-৫ আসনের উপনির্বাচনে অনিয়ম প্রমাণের পরও রাঘববোয়ালদের দায়মুক্তি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। যেসব চুনোপুঁটিদের বিরুদ্ধে নির্বাচনি অপরাধ প্রমাণিত হয়েছে, নিজেদের ক্ষমতা থাকা সত্ত্বেও তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়নি কমিশন। ভোটগ্রহণ কর্মকর্তাদের মতো চুনোপুঁটিদের সাজার কথা বলেছে, যাদের অনেক সাজা কার্যকরও হয়নি। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়েও বিতর্কে জড়িয়েছে এ কমিশন। এমন দুটি কম পরিচিত রাজনৈতিক দলকে নিবন্ধন দিয়েছে, যাদের অনেকেই কিংস পার্টি মনে করে। এছাড়াও বেসামাল বক্তব্য দিয়েছে এ কমিশন। এসব কারণে নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আস্থা ক্রমান্বয়ে তলানিতে যাচ্ছে। জাতীয় নির্বাচনে ইসির কর্মকর্তাদের অগ্রাধিকার দেওয়া উচিত মন্তব্য করে তিনি বলেন, সাবেক প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) ড. শামসুল হুদা নেতৃত্বাধীন কমিশন ইসির কর্মকর্তাদের রিটার্নিং কর্মকর্তা হিসাবে নিয়োগের চেষ্টা করেছিলেন। এর কারণ হচ্ছে, নিজস্ব কর্মকর্তাদের দিয়ে নির্বাচন করা হলে সেই নির্বাচনে ইসির সরাসরি নিয়ন্ত্রণ থাকে এবং সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান হিসাবে ইসির কর্মকর্তারা স্বাধীনভাবে কাজও করতে পারেন।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
কুষ্টিয়ার স্বনামধন্য ইংলিশ প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। স্বনামধন্য ইংলিশ প্রতিষ্ঠান CEL এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠিত ভূ-রাজনীতির ফাঁদে বাংলাদেশ শায়েস্তাগঞ্জ পূজা উদযাপন সাড়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি ওসির! ইসরাইলের অভিযান নিয়ে যা বললেন পুতিন বেরিয়ে আসছে ব্যাটারদের হতশ্রী চেহারা নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটের হার উন্নয়নের কারণে আমরা উন্নত জীবন যাপন করতে পারছি: শিক্ষামন্ত্রী মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণসহ চার অগ্রাধিকার নীতি ঘোষণা চালকের কিস্তি আর সংসারের চাকা ঘুরাল ‘টিম পজিটিভ বাংলাদেশ’ রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়ার পরিণতি ভালো হয় না: ফখরুল পিটার হাসের বক্তব্যের প্রতিবাদে যা বললেন সাংবাদিকনেতারা ‘কোনো চুক্তিতে দেশে ফিরছেন না নওয়াজ শরিফ’ পদার্থে নোবেল পেলেন ৩ জন ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট দমনে কঠোর অবস্থানে সরকার: বাহাউদ্দিন নাছিম সেপ্টেম্বরে সারা দেশে ১৫৭৭ অগ্নিকাণ্ড, ১১ প্রাণহানি ৩ মেয়েকে হত্যার পর নিখোঁজের নাটক মা-বাবার! এবার অগ্নিসংযোগের মতো ঘটনা ঘটালে রেহাই নেই: প্রধানমন্ত্রী এবার দুদকের মামলায় ড. ইউনূসসহ ১৩ জনকে তলব ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট দমনে কঠোর অবস্থানে সরকার: বাহাউদ্দিন নাছিম ডেঙ্গুতে সহস্রাধিক মৃত্যু শক সিনড্রোমের রোগীকে দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে