দিনাজপুরের গ্রামীণ জনপদে মিষ্টি ঘ্রাণ ছড়াচ্ছে কাঁঠাল – দৈনিক গণঅধিকার

দিনাজপুরের গ্রামীণ জনপদে মিষ্টি ঘ্রাণ ছড়াচ্ছে কাঁঠাল

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৭ জুন, ২০২৪ | ১০:১৩
শুরু হয়ে গেছে ফলের মওসুম। বাজারে এখন আম, লিচু, কাঁঠালসহ নানান ফলের সমারোহ। বৈরী আবহাওয়ায় কারণে গ্রীষ্ম শুরুর আগেই হাট-বাজারে পাওয়া যাচ্ছে পাকা রসালো মজাদার এইসব ফল। তবে তুলনামূলক দামে কম এবং গ্রীষ্ম মৌসুমের অন্যতম পুষ্টি সমৃদ্ধ রসালো ফল কাঁঠাল। সাধারণত এই ফলটি কম দামে দিনাজপুরের প্রত্যন্ত গ্রামীণ অঞ্চলের প্রতিটি হাটে বাজারে প্রায় কম বেশি পাওয়া যায় বলে অনেকে এই ফলটিকে গরিবের ফল বলে থাকে। সাধারণত গ্রামীণ অঞ্চলের প্রতিটি গাছের নিচু থেকে মগডাল পর্যন্ত থোকায় থোকায় ঝুলন্ত অবস্থায় রসালো ফল কাঁঠাল দেখা যায়। এই ফলের সুমিষ্ট ঘ্রাণ দিনাজপুরের গ্রামীণ জনপদে বসবাস করা মানুষদের মুগ্ধ করেছে। জেলার বীরগঞ্জের মোহনপুর, মরিচা ও বীরগঞ্জ পৌরসভা এলাকায় দেখা যায়, বিভিন্ন বাড়ির আঙিনায়, স্কুল-কলেজ, গ্রামীণ সড়কের ধারে, পুকুর পাড়ে, বাড়ির আনাচে-কানাচে রোপিত গাছে থোকায় থোকায় কাঁঠালে কাঁঠালে ভরে আছে। কোনটি কাঁচা আবার কোনটি পাকা। কাঁঠাল পাকার সুগন্ধি ঘ্রাণে গাছে উঠে অনেকে কাঁঠাল পাড়িয়ে মনের আনন্দে শিশু কিশোর থেকে শুরু করে নানান বয়সের মানুষ দল বেঁধে কাঁঠাল খেয়ে স্বাদ গ্রহণ করছে। তবে এ বছর তীব্র দাবদাহের পরও কাঁঠালের বাম্পার ফলন হয়েছে। প্রতিটি বড় ছোট মাঝারি গাছে ২০০-৬০০টি পর্যন্ত কাঁঠাল ধরেছে। বাংলাদেশের জাতীয় ফল হিসেবে কাঁঠাল ফলটি পুষ্টিতে যেমন ভরপুর তেমনি খেতেও সুস্বাদু। দিনাজপুরের প্রতিটি জনপদেই এই কাঁঠাল পাওয়া যায়। কাঁঠাল গাছে কাঁঠাল প্রাকৃতিক নিয়মে পাকে। পরিচর্যা এবং কোন কীটনাশক প্রয়োগ করার প্রয়োজন হয় না। কাঁচা কাঁঠাল তরকারি হিসেবে বেশ সুস্বাদু। কাঁঠালের বিচি সবজির সাথে রান্নাসহ পুড়িয়ে বা ভেজে ভর্তা জনপ্রিয় খাবার। কাঁঠালের কোন অংশই পরিত্যক্ত থাকেনা। কাঁঠালের উচ্ছিষ্টাংশ গবাদি পশুর খাদ্য হিসাবে ব্যবহার করা হয়। এ ব্যাপারে মোহনপুর ইউপির সমাজসেবক মাকসুদুজ্জামান সাজু বলেন, কাঁঠাল আমাদের জাতীয় ফল। ফলটি বিষমুক্ত প্রাকৃতিক উপায়ে পেয়ে থাকি। সমাজে অনেক মানুষ আছেন যারা অর্থের অভাবে ফল কিনে খেতে পারে না, তাই তারা বিভিন্ন পুষ্টি উপাদান থেকেই বঞ্চিত হয়। অপরদিকে কাঁঠাল এমন একটি ফল যেটা গ্রামাঞ্চলেই সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায়, যা আমাদের পুষ্টির চাহিদা পূরণ করে। তাই সকলকে কম বেশি এই ফলটি খাওয়া উচিত। বীরগঞ্জ উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ শরিফুল ইসলাম বলেন, কাঁঠালে অন্যান্য ফলের চেয়ে পুষ্টি উপাদান বেশি থাকে। সাধারণত ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, আয়রনসহ বিভিন্ন খনিজ উপাদান এই ফল থেকে পাওয়া যায় এবং এই ফলটি খেলে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। তাই বেশি বেশি করে এই ফল খেতে হবে।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
জাকারিয়া সৌখিনের ‘লাভ রেইন’; অভিনয়ে তৌসিফ-নীহা সুপ্রিম কোর্ট বারের চেম্বার রাত ৮টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে সাকিব-তামিমের বন্ধুত্বে ফাটলের নেপথ্যে জামালপুর থেকে রেলযোগে ঢাকা আনতে গরুপ্রতি খরচ হচ্ছে ৫০০ টাকা ৩ ম্যাচের টানা সুপার এইটে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ অটোরিকশা চালকের চাঁদাবাজি মামলায় লক্ষীপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কারাগারে ‘সাকিব ভাইয়ের পারফরম্যান্স নিয়ে দলের কেউ চিন্তিত নয়’ : শান্ত আমরা বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বকে সম্মান করি আলমডাঙ্গায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় গরু ব্যবসায়ী নিহত মেহেরপুরে জমে উঠেছে শতবর্ষী বারাদী ছাগলের হাট সকালে হাইকোর্টে জামিন, বিকেলে স্থগিত জনসভায় মোদিকে খোঁচা দিয়ে রাহুল : ‘আমার ঈশ্বর জনগণ’ ফেনীতে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী থানায় হাজির ত্রিশালে আন্তঃজেলা চোর চক্রের ৬ জন আটক মেহেরপুরে কাজীপুর সীমান্তে কৃষককে পিটিয়েছে বিএসএফ ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে চসিকের দুই প্রকৌশলী ওএসডি ওয়াশিংটন অ্যাকর্ডের সিগনেটরি স্বীকৃতি আইইবির কুষ্টিয়ায় বিল থেকে চুরি হওয়া শিশুর মরদেহ উদ্ধার আমরা ভারতের বিপক্ষে শক্ত লড়াই করতে যাচ্ছি : জোন্স দেশের কারাগারে ৩৬৩ বিদেশির বেশিরভাগই ভারতের: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী