বিপাকে পাটচাষি – দৈনিক গণঅধিকার

বিপাকে পাটচাষি

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২৩ | ৮:৫৮
আমাদের ইতিহাস, সংস্কৃতি আর ঐতিহ্যের অংশ বাংলার সোনালি আঁশ পাট। এক সময় পাট ও পাটজাত পণ্য রফতানি করে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করত। বাংলাদেশের পাটের আঁশের মান অন্যান্য দেশের তুলনায় ভালো হওয়ায় এর খ্যাতি ছিল বিশ্বজুড়ে। কিন্তু নানা সমস্যার কারণে এ শিল্পের সেই রমরমা অবস্থা আর নেই। বুধবার খবরে প্রকাশ, বেসরকারি পাটকল মালিকরা এ বছর পাটের ন্যায্যমূল্য দিতে চাচ্ছেন না। সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত পাটকলগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সরকারিভাবে আগের মতো আর পাট কেনাও হয় না। মূল্যায়ন না হওয়ায় মাথার ঘাম পায়ে ফেলে উৎপাদিত পাট নিয়ে তাই বিপাকে পড়েছেন কৃষক। প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, বিগত ১০ বছরের মধ্যে এবার পাটের দাম নিম্নমুখী। বর্তমানে প্রতি মন পাট ১ হাজার ৮০০ থেকে ২ হাজার ২০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, যা এক বছর আগেও ছিল ২ হাজার ৪০০ থেকে ২ হাজার ৮০০ টাকা। বাড়তি দামের আশায় যারা গত বছর পাট সংরক্ষণ করেছেন, তারা আরও বড় ধরনের লোকসানে পড়েছেন। বর্তমানে পৃথিবীজুড়ে পরিবেশ সচেতনতা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিশ্ববাজারে পাটের চাহিদা বেড়েছে, অথচ দেশে বিপুল পরিমাণ উৎপাদন হলেও পাটজাত দ্রব্য ব্যবহারে আমাদের তেমন আগ্রহ নেই। সেই স্থান দখল করেছে পলিথিন। নিজেদের উৎপাদন যদি দেশেই ব্যবহার করা না হয়, বিপুল পরিমাণ পাট নিয়ে কৃষকরা বিপাকে পড়বে, সেটাই স্বাভাবিক। পাটচাষে অনাগ্রহী হওয়ার আশঙ্কাও অমূলক নয়। এক্ষেত্রে পলিথিনের দৌরাত্ম্য কমানোর পাশাপাশি দেশে জনসচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমে পাটজাত পণ্যের চাহিদা বাড়াতে হবে। আবার বিশ্ববাজারের চাহিদাকে কাজে লাগিয়ে উৎপাদন বাড়াতে সরকারি পাটকলগুলো খুলে দিতে কী পদক্ষেপ নেওয়া দরকার, তা নিয়ে ভাবতে হবে। বিশ্বমানের পাটজাত পণ্য উৎপাদনে বেসরকারি পাটকলগুলোর সক্ষমতাও বাড়াতে হবে। সর্বোপরি সরকারকে এ খাতের কৃষক, রপ্তানিকারক, ব্যবসায়ী ও মিল মালিকদের পাশে দাঁড়াতে হবে। আশার কথা, শত প্রতিকূলতা সত্ত্বেও কৃষকের জমিতে পানির ঢেউয়ের মতো পাটগাছ দোলার সেই দৃশ্য এখনো হারিয়ে যায়নি। কাঁচা পাট পানিতে ভিজিয়ে রেখে আঁশ ছাড়ানোর জন্য তাদের যে প্রাণান্তকর চেষ্টা, সেটিও আছে। শুধু একে রক্ষায় কৃষকের কষ্টের বিনিময়ে উৎপাদিত সোনালি আঁশের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিতে সরকার এগিয়ে আসবে, এটাই প্রত্যাশা।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
সাতক্ষীরায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন খুলনায় যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা আবেদ আলীর ছেলে সিয়ামকে উপজেলা ছাত্রলীগ থেকে অব্যাহতি সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় না হওয়ায় দেশের অর্ধেক রোগী বিদেশে চলে যান : স্বাস্থ্যমন্ত্রী মাদারীপুরে দুই শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু; আটক মা ২ শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার অপরাধে মধুখালীতে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে অপসারণ চন্দনা কমিউটার ট্রেনের স্টপেজ পেলো ফরিদপুর ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লিফটের জন্য ব্যাপক ভোগান্তি পাবিপ্রবিতে কোটা সংস্কার দাবিতে শিক্ষার্থীদের মশাল মিছিল দৌলতদিয়ায় বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে পদ্মার পানি বালিয়াকান্দিতে স্কুলের সামনে ইজিবাইকচাপায় ছাত্রী নিহত বেনাপোলে ১৮ টি সোনার বারসহ আটক ১ চুয়াডাঙ্গা সীমান্তে বিজিবির অভিযানে ৮ টি সোনার বারসহ যুবক আটক আবারও কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ ইবি শিক্ষার্থীদের ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে ১৩ কিশোর-কিশোরী বেনাপোল সীমান্তে ৯টি সোনার বারসহ আটক ১ যশোরে ‘জিন সাপ’ আতঙ্ক, হাসপাতালে ভর্তি ১০ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২১৬ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আয় বেনাপোল কাস্টমসে যশোরে সিজার অপারেশন করলেন নাক কান গলার চিকিৎসক কোটা সংস্কারের দাবিতে ফের কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ ইবি শিক্ষার্থীদের