আটক ১০ জনের মধ্যে আছেন চিকিৎসকের স্ত্রী – দৈনিক গণঅধিকার

আটক ১০ জনের মধ্যে আছেন চিকিৎসকের স্ত্রী

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৩ আগস্ট, ২০২৩ | ১০:১১
সিরাজগঞ্জের খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজের চিকিৎসক সোহেল তানজিম রানা ও তাঁর স্ত্রী মাইশা ইসলাম হাফসা নিখোঁজের ঘটনায় গত ২৬ জুলাই এনায়েতপুর থানায় হয় সাধারণ ডায়েরি (জিডি)। শনিবার ভোরে মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় জঙ্গি আস্তানায় অভিযানের সময় এ দম্পতির ‘অস্তিত্ব’ মেলে। এর মধ্যে স্ত্রী হাফসা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে ধরা পড়লেও আস্তানা থেকে পালান চিকিৎসক সোহেল। এ চিকিৎসক কুলাউড়ায় ‘সালমান’ পরিচয়ে অবস্থান করছিলেন। ওই অভিযানে ১০ জনকে আটক করার পর বেরিয়ে আসে নিখোঁজ চিকিৎসকের স্ত্রী হাফসার পরিচয়। পুলিশ সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট ও সিরাজগঞ্জ পুলিশের দু’জন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা জানান, মাস চারেক আগে খাজা ইউনুস আলী মেডিকেল কলেজে যোগ দেন সোহেল। হাসপাতালের পাশেই একটি বাসায় স্বামী-স্ত্রী বাস করতেন। নিখোঁজ জিডির পর তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ জানতে পারে, হঠাৎ একদিন অল্প কিছু মালপত্র নিয়ে বাসা ছেড়ে চলে যান এ দম্পতি। হাফসার ভাই ওমর ফারুক বলেন, ‘আমার বোন স্বামীসহ গত ২৬ জুলাই থেকে নিখোঁজ ছিলেন। আমাদের গ্রামের বাড়ি নাটোরের চাঁদপুরে। স্বামীর সঙ্গে কিছু দিন তিনি সিরাজগঞ্জে অবস্থান করছিলেন।’ জঙ্গি আস্তানা সন্দেহে কুলাউড়ায় কর্মদা ইউনিয়নের পূর্ব টাট্টিউলি গ্রামের একটি বাড়িতে শনিবার ভোর থেকে ‘অপারেশন হিলসাইড’ নামে সাড়ে চার ঘণ্টার এই অভিযানে নামে সিটিটিসি। অভিযানের আদ্যোপান্ত জানাতে রোববার ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন করবে সিটিটিসি। এর আগে ২০১৭ সালের মার্চে মৌলভীবাজারের বড়হাট ও নাসিরপুরে জঙ্গি আস্তানায় অভিযান চালানো হয়েছিল। অভিযান শেষে সিটিটিসির প্রধান ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার মো. আসাদুজ্জামান জানান, ‘ইমাম মাহমুদের কাফেলা’ নামে নতুন সংগঠনের প্রধানসহ ১০ জঙ্গিকে আটক করা হয়েছে। এর মধ্যে চারজন পুরুষ ও ছয়জন নারী। তাদের সঙ্গে তিন শিশু রয়েছে। অভিযানে তিন কেজি বিস্ফোরক, হাই-এক্সপ্লোসিভ ৫০টি ডেটনেটর, ৩ লাখ ৬১ হাজার টাকা এবং জঙ্গি প্রশিক্ষণ সামগ্রী ও বিপুল পরিমাণ জিহাদি বই উদ্ধার করা হয়েছে। নতুন জঙ্গি সংগঠনটি পূর্ব টাট্টিউলি গ্রামে জমি কিনে আস্তানা তৈরি করেছে বলে দাবি সিটিটিসির প্রধান আসাদুজ্জামানের। তিনি বলেন, কথিত হিজরতের নামে ওই আস্তানায় নিয়ে জঙ্গিদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার প্রস্তুতি চলছিল। অঙ্কুরেই তাদের পরিকল্পনা ভেস্তে দেওয়া হয়েছে। অভিযানে জব্দ বিস্ফোরকগুলো স্থানীয় আছকরাবাদ মাঠে ধ্বংস করা হয়। অপারেশন হিলসাইডের আটকরা হলেন– সাতক্ষীরা সদরের দক্ষিণ নলতা গ্রামের শরীফুল ইসলাম (৪০), কিশোরগঞ্জের ইটনার কানলা এলাকার হাফিজ উল্লাহ (২৫), নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লার রসুলপুর গ্রামের খায়রুল ইসলাম (২২), সিরাজগঞ্জের কাজীপুরের মাইজবাড়ী গ্রামের রাফিউল ইসলাম (২২), পাবনার আটঘরিয়ার শ্রীপুর গ্রামের শাপলা বেগম (২২), নাটোর সদরের চাঁদপুর গ্রামের মাইশা ইসলাম হাফসা (২০), বগুড়ার সারিয়াকান্দির নিজবলাই গ্রামের মোছা. সানজিদা খাতুন (১৮), সাতক্ষীরার তালার দক্ষিণ নলতা গ্রামের আমিনা বেগম (৪০) এবং তাঁর মেয়ে মোছা. হাবিবা বিনতে শফিকুল (২০)। এ ছাড়া ১৭ বছর বয়সী এক কিশোরীকে আটক করা হয়েছে। তার নাম জানা যায়নি। তাদের সঙ্গে থাকা শিশুদের বয়স ১২ মাস, ১৮ মাস ও ছয় বছর। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, মাসখানেক আগে যমুনা নদীর ভাঙনে ঘর হারানো টাঙ্গাইলের কিছু মানুষ কুলাউড়ার পূর্ব টাট্টিউলি গ্রামের নির্জন বাইশাআলীর টিলায় বসত স্থাপনের জন্য ওই এলাকার রফিক মিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর ৫০ শতক খাস জমি তারা কিনে সেখানে কাঁচাঘর নির্মাণ করে বাস শুরু করেন। কর্মধা ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল কাদের জাতীয় পরিচয়পত্র ও তাদের চেয়ারম্যানের প্রত্যয়নসহ আসার পরামর্শ দেন। এরপর তারা আর যোগাযোগ করেননি। কর্মধা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুহিবুল ইসলাম আজাদ বলেন, জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে যে বা যারা জড়িত, তাদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করা জরুরি। পূর্ব টাট্টিউলি গ্রামের সার্ভেয়ার চেরাগ মিয়া জানান, ‘আমাদের এলাকা শান্তির জনপদ। এখানে জঙ্গি আস্তানা গড়ে ওঠায় স্বাভাবিক নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়েছে।’ জানা গেছে, গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য ছিল মৌলভীবাজারের কোনো পাহাড়ি অঞ্চলে নতুন একটি উগ্রবাদী সংগঠন আস্তানা তৈরি করেছে। এমন খবরের ভিত্তিতে পুলিশের সিটিটিসি ইউনিটের সহকারী পুলিশ কমিশনার শফিকুল ইসলাম ৫-৬ দিন ধরে বিভিন্ন পাহাড়ে অনুসন্ধান চালান। এর মধ্যে মৌলভীবাজারের আস্তানায় অবস্থান করা এক জঙ্গি তাঁর পরিবারকে আনতে গত শুক্রবার ঢাকায় গিয়ে আটক হন। তাঁর দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে শুক্রবার সন্ধ্যায় কুলাউড়ার কর্মধা ইউপির পূর্ব টাট্টিউলি গ্রামের বাইশাআলীর টিলায় আস্তানার খোঁজ মেলে। এরপর থেকে সিটিটিসির সদস্যরা ওই এলাকা ঘেরাও করে রাখেন। ঢাকা থেকে সিটিটিসি ও সোয়াট টিম শনিবার ভোর থেকে অভিযানে নামে।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব হচ্ছেন ইমিরেটাস এডিটর নাঈমুল ইসলাম খান মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা কেন ‘মানবঢাল’ হিসেবে ব্যবহৃত হয় ? আবারও মূল্য বাড়লো সব ধরনের জ্বালানি তেলের র‍্যাবের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উত্তম কুমারের দেশত্যাগে আদালতের নিষেধাজ্ঞা ২ বিষয়ে অকৃতকার্য হলেও বিশেষ শর্তে কলেজে ভর্তি হওয়া যাবে পাকিস্তানের নির্বাচন ছিল জনগণের ম্যান্ডেটের সবচেয়ে বড় ডাকাতি: ইমরান খান টেকনাফ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ‘বদি ম্যাজিকে’ জাফরের জয় ইনশাল্লাহ আমরা জয়ী হবো: মির্জা ফখরুল ডিএনএ’র স্যাম্পল দিতে কলকাতা যাচ্ছেন এমপিকন্যা ডরিন ১’লা জুন থেকে মংলা-বেনাপোল রেল রুটে ট্রেন চলবে, ভাড়া কত? সাবেক সংসদ সদস্য মনজুর কাদের বুলবুলের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সুন্দরবনের বিভিন্ন স্থান থেকে হরিণসহ ১০০ মৃত প্রাণী উদ্ধার কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে কয়েক হাজার বাংলাদেশি কর্মীর ভিড় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে বজ্রসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা দুর্নীতি মামলায় ঋতুপর্ণার নাম; ইডির তলব অনেকে আমাকে ‘লিভ ইনেও’ পাঠিয়েছেন : পায়েল জিয়াউর রহমানের কবরে বিএনপির পুষ্পস্তবক অর্পণ সরকার অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনকে জাদুঘরে পাঠিয়েছে: রিজভী বিএনপি ক্ষমতায় এসে কেনো জিয়া হত্যাকাণ্ডের বিচার করেনি, জনগণ জানতে চায় : সাঈদ খোকন সন্ধ্যায় কন্যাকুমারীতে ৪৫ ঘণ্টার ধ্যানে বসছেন মোদি, বিরোধীরা সরব