গ্যাস বিস্ফোরণে ভবনধস: সাবধানতা ও সতর্কতা কাম্য – দৈনিক গণঅধিকার

গ্যাস বিস্ফোরণে ভবনধস: সাবধানতা ও সতর্কতা কাম্য

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৮ মার্চ, ২০২৩ | ১০:৫২
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে একটি বেসরকারি অক্সিজেন প্ল্যান্টে ভয়াবহ বিস্ফোরণের রেশ কাটতে না কাটতেই রোববার রাজধানীর সায়েন্সল্যাব এলাকায় একটি তিনতলা ভবনে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় এ সম্পাদকীয় লেখা পর্যন্ত তিনজন মারা গেছেন। আহত হয়েছেন অর্ধশতাধিক, যাদের মধ্যে অনেকের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, দীর্ঘদিন জমে থাকা গ্যাস বিস্ফোরণে দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। উল্লেখ্য, ঘটনার পর সেখান থেকে আলামত সংগ্রহ করেছে ডিএমপির বোমা নিষ্ক্রিয়করণ দল, সিআইডির ক্রাইম সিন ইউনিট ও সেনাবাহিনীর একটি দল। প্রাথমিক অনুসন্ধানের পর সবারই অভিমত হচ্ছে-এটি কোনো নাশকতার ঘটনা নয়, দুর্ঘটনা। অন্যদিকে পুলিশের ভাষ্য হচ্ছে-বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট, জমে থাকা গ্যাস, গ্যাস সিলিন্ডার লিক ও শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত যন্ত্র-এই চারটির মধ্যে কোনো একটির কারণে বিস্ফোরণ ঘটতে পারে। যদিও তদন্ত শেষে এ বিষয়ে নিশ্চিতভাবে বলা যাবে, তবে ভবনে থাকা ব্যক্তি ও প্রত্যক্ষদর্শীদের সঙ্গে কথা বলে এবং বিস্ফোরণস্থল পরিদর্শন করে সামগ্রিক অবস্থা বিবেচনায় সবাই অনেকটা নিশ্চিত হয়েছেন যে, জমে থাকা গ্যাস থেকেই মূলত দুর্ঘটনাটি ঘটেছে। জানা যায়, বিস্ফোরণ এতটাই শক্তিশালী ছিল যে, ভবনের তিনতলা থেকে কংক্রিটের টুকরো, ফার্নিচার, দরজা, শাটারসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র রাস্তায় ছিটকে পড়ে। বিস্ফোরকের অস্তিত্ব না থাকার পরও এমন বিস্ফোরণের ঘটনার জন্য ভবনের দুর্বল অবকাঠামোকে দায়ী করেছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। সিটি করপোরেশন অবশ্য এরই মধ্যে ভবনটি ঝুঁকিপূর্ণ ঘোষণা করে সেখানে ব্যানার টাঙিয়ে দিয়েছে। সচেতনতা, সাবধানতা ও দায়িত্বশীলতার মাধ্যমে এ ধরনের দুর্ঘটনা রোধ করা সম্ভব হলেও হতাশাজনক হলো, ভবন মালিক ও ব্যবহারকারী হিসাবে আমরা যেমন সচেতন নই, তেমনই নজরদারির ক্ষেত্রেও সেবাপ্রদানকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর চরম উদাসীনতা ও দায়িত্বহীনতা পরিলক্ষিত হচ্ছে। বস্তুত এসব কারণেই দুর্ঘটনার হার ক্রমাগত বাড়ছে। প্রতিবছর দেশে অন্তত ৯ লাখ গ্যাস ও বিদ্যুৎসংশ্লিষ্ট দুর্ঘটনা ঘটছে। এরপরও সুরক্ষা নিশ্চিতে যত্নবান হচ্ছেন না কেউ। আমাদের অভিজ্ঞতা বলে, এ ধরনের দুর্ঘটনার পর কর্তৃপক্ষ সাধারণত তদন্ত কমিটি গঠন, মামলা প্রভৃতির আয়োজন করে কিছুদিন বেশ সরব ভূমিকা পালন করে, পরে বিষয়টি বিস্মৃতির অতলে হারিয়ে যায়। এ পরিপ্রেক্ষিতে ধরে নেওয়া যায়, এক্ষেত্রেও এর অন্যথা হবে না। উন্নত বিশ্বে কোনো দুর্ঘটনা সংঘটিত হলে আধুনিক প্রযুক্তি, জনবল, অর্থবল প্রভৃতির কল্যাণে খুব সহজেই পরিস্থিতি সামাল দেওয়া সম্ভব হয়। আমাদের না আছে প্রযুক্তিগত দক্ষতা, না আছে জনবল ও অর্থের জোর। তাছাড়া রাজধানীর সরু রাস্তাসহ অবকাঠামোগত অসুবিধার কারণে উদ্ধার বা সহায়তাকারী দলের দুর্ঘটনাস্থলে পৌঁছতেও বেশ বেগ পেতে হয়। এ কারণে ক্ষয়ক্ষতি বৃদ্ধি পাওয়ার আশঙ্কা থাকে। যে কোনো দুর্ঘটনা জীবন ও সম্পদবিনাশী। দেশে প্রায়ই নানা ধরনের দুর্ঘটনা ঘটলেও এ ব্যাপারে করণীয় নির্ধারণ ও কার্যকর ব্যবস্থা, উদ্ধার প্রক্রিয়া যতটুকু থাকা দরকার, এর প্রায় কিছুই নেই। এ ব্যাপারে সরকার স্বল্প ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা নিয়ে অগ্রসর হবে-এটাই প্রত্যাশা।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
তাপদাহে আয় কমেছে নিন্ম আয়ের শ্রমজীবীদের গোদাগাড়ীতে মাদক মামলা দেওয়ায় পুলিশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার আওয়ামী লীগের সমাবেশ শুরু, স্লোগান কম দেওয়ার আহ্বান নিউমার্কেট সায়েন্সল্যাব চাঁদাবাজদের স্বর্গরাজ্য ‘ঠেকায়ে কারও কাছে কিছু নেইনি, কাউরে উপকার করে যদি…’: এসআই ওবায়েদুর রহমান বীর বাঙালি মুক্তির শপথে অনড় উৎস চিহ্নিত, প্রতিকারে নেই কার্যকর উদ্যোগ চট্টগ্রামে নির্দেশনা মানছেন না ব্যবসায়ী-আড়তদাররা গাজায় ২,০০০ টন খাদ্য পাঠাল যুক্তরাজ্য ইউক্রেনের পতন ঠেকাবে যুক্তরাষ্ট্র ক্যানসারের টিউমার অপসারণে বিশ্ব রেকর্ড রুশ চিকিৎসকদের পুলিশ না চাইলে ফুটপাতে চাঁদাবাজি বন্ধ হবে না চীন পরিচালিত পাকিস্তানের সমুদ্র বন্দরে হামলা, নিহত ৮ দেশের জনগণ ত্রিশঙ্কু অবস্থায় রয়েছে: মির্জা আব্বাস সরকারি চাকরিতে ঢুকলেই পেনশন স্কিম বাধ্যতামূলক এবার সাকিবকে একহাত নিলেন রুমিন ফারহানা ‘দেশের মানুষ খেতে পায় না, আ.লীগ নেতারা বিদেশে সম্পদ গড়ে’ প্রধানমন্ত্রীর বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কাছে বিএনপি-জামায়াত পরাজিত হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ১৮শ বছরের পুরোনো রোমান মূর্তি ঈদে যেসব ব্যাংকে নতুন নোট মিলবে ৩১ মার্চ থেকে