ডলারের বাজারে শৃঙ্খলা ফেরেনি এখনও – দৈনিক গণঅধিকার

ডলারের বাজারে শৃঙ্খলা ফেরেনি এখনও

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২৯ মে, ২০২৪ | ১১:৩৯
নানা রকম উদ্যোগ নেওয়া হলেও ডলারের বাজারে শৃঙ্খলা ফেরেনি। ডলারের বাজারে সরবরাহও খুব একটা বাড়েনি। ব্যাংকে নির্ধারিত দরে ডলার পাওয়া না গেলেও ব্যাংকের বাইরে বাড়তি দরে ডলার ঠিকই পাওয়া যাচ্ছে। অনেক দিন ধরে ডলারের একক রেট চালুর চাপ দিয়ে আসছেন আইএমএফ ও ব্যবসায়ীরা। কিন্তু অজানা কারণে সরকার তা চালু করতে পারছে না। চলমান এ সংকট উত্তরণে ডলারের একক রেট নীতি কার্যকর করা এবং সরবরাহ বাড়ানোর কোনো বিকল্প নেই বলে মনে করেন মুদ্রাবাজার বিশেষজ্ঞরা। এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ এখনো ১৮ বিলিয়ন ডলারের ঘরে। আগামী বছর থেকে বিদেশি ঋণ পরিশোধের চাপ দুই গুণের বেশি বাড়বে। ফলে সামনের দিনগুলোতে ডলারের চাহিদা কখনই কমবে না। এ খাতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি সরবরাহ বাড়াতে না পারলে সংকট আরও বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ অবস্থায় ডলারের সরবরাহ বাড়ানোর পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, রপ্তানি আয় ও রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়াতে না পারলে এ সংকট উত্তরণ সম্ভব নয়। অন্যদিকে ডলারের সঙ্গে ইউরোসহ অন্য বৈদেশিক মুদ্রার দামও বাড়ছে অব্যাহতভাবে। এ প্রসঙ্গে বিশ্বব্যাংক ঢাকা কার্যালয়ের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ড. জাহিদ হোসেন বলেন, একেক জায়গায় একেক রেট কার্যকর রেখে বাজারটাকে কখনই স্বাভাবিক রাখা যাবে না। এ কারণে সবার জন্য একক রেট কার্যকর করতে হবে। একই সঙ্গে ডলার পাচার রোধ করতে হবে। এ ছাড়া রপ্তানি আয়ের একটা মোটা অঙ্ক দেশে আসছে না। এটা সবার কাছে পরিষ্কার। এ তথ্যটা সরকার জানে। বাংলাদেশ ব্যাংকও জানে। ফলে ওই ডলারটা কেন আসছে না? কারা আনছে না। তাদের ধরতে হবে। আসছে বাজেটে বৈদেশিক মুদ্রাবাজার ব্যবস্থাপনায় সংস্কার আনার ব্যাপারেও জোর দিয়েছেন তিনি। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) চাপে ডলারের বিপরীতে টাকার মান এক ধাপে প্রায় ৭ টাকা কমানো হয় গত ৮ মে। এর ফলে ব্যাংকিং খাতে ১১৭ টাকায় প্রতি ডলার বিক্রি হওয়ার কথা। বাংলাদেশ ব্যাংকসহ অন্য ব্যাংকগুলোর ওয়েবসাইটেও ডলারের সর্বোচ্চ দর ১১৭ টাকা দেখানো হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবে ব্যাংকগুলোতে এই দরে ডলার পাওয়া যাচ্ছে না। এলসি খোলার ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীরা এখনো ব্যাংকের ওপর পুরোপুরি নির্ভর করতে পারছেন না। খোলাবাজারেও ডলারের সংকট কাটছে না। দর এখনো চড়া। গতকালও খোলাবাজারে প্রতি ডলার ১২০-১২২ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এমনকি বিদেশ ভ্রমণের জন্য কোনো ব্যাংক থেকে ডলার অ্যান্ডোর্স করতে চাইলে তা করে দিচ্ছে। অথচ ডলার দিচ্ছে না। অর্থাৎ ব্যাংকগুলো ডলার দিতে পারছে না। দিলেও দাম বেশি। কোনো কোনো ক্ষেত্রে এমন ঘটনাও ঘটছে যে, কোনো ব্যক্তি বিদেশ ভ্রমণের জন্য ব্যাংক থেকে ডলার নিতে চাইলে কর্মকর্তারা গ্রাহকদের চাহিদামতো ডলার দিতে পারছেন না। উল্টো গ্রাহকদের খোলা বাজার থেকে ডলার সংগ্রহের ব্যাপারে উৎসাহ দিচ্ছেন। এটা অবশ্য অনেক আগে থেকেই হয়ে আসছে। মঙ্গলবারও (২৮ মে) প্রথম প্রজন্মের একটি বেসরকারি ব্যাংকের প্রধান শাখায় এমন ঘটনা ঘটেছে। মানোয়ার হোসেন (ছন্দনাম) নামের একজন বায়িং হাউস ব্যবসায়ী বিদেশ ভ্রমণের জন্য ডলার খুঁজছিলেন। তার প্রয়োজন ছিল ৩ থেকে ৪ হাজার ডলার। কয়েকটি ব্যাংক ঘুরেও তিনি তা ম্যানেজ করতে পারেননি। এর আগে চলতি মাসের প্রথম দিকেই এমন ঘটনার মুখোমুখি হয়েছিলেন তিনি। সে সময় এক সপ্তাহ ধরে খোঁজার পর মতিঝিলে একটি বেসরকারি ব্যাংকের প্রধান শাখার এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তার কাছে যান। তিনি ব্যাংক থেকে নির্ধারিত দরে ডলার সরবরাহে অপারগতা প্রকাশ করেন। পরে ওই গ্রাহকের অনুরোধ ও ব্যক্তিগত সম্পর্কের কারণে ওই কর্মকর্তা সাজু সরকারকে নিজ কক্ষে বসিয়ে রেখে কার্ব মার্কেটে ডলারের সন্ধান করেন। প্রায় দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর কার্ব মার্কেটের এক ব্রোকারকে ফোন করে ডেকে আনেন ওই ব্যাংক কর্মকর্তা। তারপর ১২১ টাকা দরে দেড় হাজার ডলার দিতে সমর্থ হন। এমন পরিস্থিতি এখনো বিরাজমান। মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম একজন গার্মেন্টস ব্যবসায়ী (বায়িং হাউস)। তিনি ব্যবসায়িক কাজের জন্য আমেরিকা যাবেন। তাকে সেখানে বেশ কিছুদিন থাকতে হবে। এ জন্য বেশ কিছু ডলারের প্রয়োজন। নিজে ব্যবসায়ী হওয়া সত্ত্বেও গত প্রায় এক মাস ধরে ৫ হাজার ডলার জোগাড় করতে তাকে বেগ পেতে হচ্ছে। যদিও তিনি নিজেও একজন রপ্তানিকারক। নিজের অর্জিত রপ্তানি আয়ের অর্থও ব্যাংক থেকে সময়মতো তুলতে পারছেন না। ফলে পড়েছেন উভয় সংকটে। একদিকে ডলার সংকট। অন্যদিকে বিদেশ ভ্রমণ করাও অনেক জরুরি। কেননা বায়ারদের সঙ্গে পূর্বনির্ধারিত বৈঠক ধরতে হলে তাকে ৩০ মে-র আগেই ঢাকা ছাড়তে হবে। অবশেষে তিনিও শরণাপন্ন হয়েছেন খোলা বাজারের। বিভিন্ন সোর্সের মাধ্যমে যোগাযোগ করে খোলা বাজার থেকে ডলার ম্যানেজ করেছেন। অবশ্য সেটা এখনো তিনি হাতে পাননি। এদিকে প্রস্তাবিত বৈদেশিক মুদ্রা ও বিনিময় ব্যবস্থাপনা আইন-২০২৩ সংসদে পাসের অপেক্ষায় রয়েছে। এই আইন পাসের ক্ষেত্রে আইএমএফের চাপও রয়েছে। আগামী মাসে বাজেট অধিবেশন বসতে যাচ্ছে। সেটা নিতান্তই বাজেট অধিবেশন। ফলে এ আইন পাস হতে আরও বিলম্বই হবে বলে মনে করেন অর্থবিভাগের কর্মকর্তারা। বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, সবখানে একটা জবাবদিহিতার বিষয় থাকা জরুরি। শক্ত জবাবদিহিতা ছাড়া কোথাও সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা যাবে না। বৈদেশিক মুদ্রাবাজারের ক্ষেত্রেও এর ব্যতিক্রম নয় বলে তিনি মনে করেন।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
সাতক্ষীরায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন খুলনায় যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা আবেদ আলীর ছেলে সিয়ামকে উপজেলা ছাত্রলীগ থেকে অব্যাহতি সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় না হওয়ায় দেশের অর্ধেক রোগী বিদেশে চলে যান : স্বাস্থ্যমন্ত্রী মাদারীপুরে দুই শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু; আটক মা ২ শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার অপরাধে মধুখালীতে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে অপসারণ চন্দনা কমিউটার ট্রেনের স্টপেজ পেলো ফরিদপুর ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লিফটের জন্য ব্যাপক ভোগান্তি পাবিপ্রবিতে কোটা সংস্কার দাবিতে শিক্ষার্থীদের মশাল মিছিল দৌলতদিয়ায় বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে পদ্মার পানি বালিয়াকান্দিতে স্কুলের সামনে ইজিবাইকচাপায় ছাত্রী নিহত বেনাপোলে ১৮ টি সোনার বারসহ আটক ১ চুয়াডাঙ্গা সীমান্তে বিজিবির অভিযানে ৮ টি সোনার বারসহ যুবক আটক আবারও কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ ইবি শিক্ষার্থীদের ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে ১৩ কিশোর-কিশোরী বেনাপোল সীমান্তে ৯টি সোনার বারসহ আটক ১ যশোরে ‘জিন সাপ’ আতঙ্ক, হাসপাতালে ভর্তি ১০ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২১৬ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আয় বেনাপোল কাস্টমসে যশোরে সিজার অপারেশন করলেন নাক কান গলার চিকিৎসক কোটা সংস্কারের দাবিতে ফের কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ ইবি শিক্ষার্থীদের