পদ দখল করতে এ কেমন নৃশংসতা! – দৈনিক গণঅধিকার

পদ দখল করতে এ কেমন নৃশংসতা!

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৩১ জুলাই, ২০২৩ | ১০:৩০
নরসিংদীর মাধবদীতে একটি ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং ফিনিশিং কারখানার এক শ্রমিককে পিটিয়ে ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পদ দখল করতে এ নৃশংস ঘটনা ঘটানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। হত্যাকাণ্ডের খবর পেয়ে রোববার দুপুরে মাধবদীর ভগিরথপুর হাজী সফিউদ্দিনের মালিকানাধীন নিলা ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং ফিনিশিং মিলের ৩ তলার একটি কক্ষ থেকে নিহতের রক্তাক্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৯ জনকে থানায় আনা হয়। এদিকে অভিযোগ উঠেছে, কারখানার রং মাস্টারের পোস্ট দখল করতে পরিকল্পিতভাবে তাকে হত্যা করেন তারই সহকর্মীরা। মৃত্যুর দীর্ঘ সময় পার হয়ে গেলেও নিহতের মরদেহ স্বজনদের দেখতে দেয়নি কারখানা কর্তৃপক্ষ। নিহত নেজামূল ইসলাম ওরফে নাজমুল (৪০) নিলা ডাইং অ্যান্ড প্রিন্টিং ফিনিশিং মিলের রং মাস্টার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি ময়মনসিংহ জেলার কোতোয়ালি থানার নেহালিয়া কান্দা গ্রামের কুদ্দুস আলীর ছেলে। নিহতের স্বজনদের অভিযোগ নাজমুলকে পিটিয়ে ও ধারালো কিছু দিয়ে আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, মাধবদীর ভগিরথপুর হাজী সফিউদ্দিনের মালিকানাধীন নিলা ডাইং এন্ড প্রিন্টিং ফিনিশিং মিলের ভেতরে একটি মরদেহ পড়ে আছে- এমন খবরের ভিত্তিতে পুলিশ সেখানে যায়। পরে কারখানার ভেতরে থেকে মাথা নিচের দিকে ও পা উপরের দিকে একটি জানালার গ্রিলে বাঁধা অবস্থায় একটি মরদেহ পড়ে থাকতে দেখা যায়। ওই সময় কারখানার মেঝেতে প্রচুর পরিমাণ রক্ত ছড়িয়ে থাকতে দেখা যায়। পরে পুলিশ নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এদিকে শ্রমিক নিহতের খবর পেয়ে ইন্ডাস্ট্রিয়াল পুলিশের একটি দল ও নরসিংদী পুলিশ সুপার মো. মোস্তাফিজুর রহমানসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। নিহত নাজমুলের শ্যালক কিরন জানান, ১০ বছর যাবত তার ভগিনীপতি এই কারখানায় রং মাস্টার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার মৃত্যু খবর পেয়ে কারখানায় এসে দেখি তার রক্তাক্ত দেহ পড়ে আছে। এর কারণ জানতে চাইলে আমাদের কারখানা থেকে বের করে দেয়। এর পর আমাদের আর কারখানার ভেতর ঢুকতে দেয়নি। নিহতের আরেক স্বজন সুজন মিয়া জানিয়েছেন, রং মাস্টারের জায়গা নিতে চেয়েছিল নাজমুলের অধীনে থাকা এক সহকর্মী। এ নিয়ে তাদের মধ্যে দূরত্ব সৃষ্টি হয়। এরই ধারাবাহিকতায় আমার দুলাভাইকে কয়েকজন মিলে পরিকল্পিতভাবে পিটিয়ে ও অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করে হত্যা করেছে। এ বিষয়ে কারখানা কর্তৃপক্ষকে ফোন দিলেও তারা কেউ ফোন রিসিভ করেনি। মাধবদী থানার ওসি তদন্ত তরিকুল ইসলাম জানান, কারখানার ভেতরে নিহতের মাথা নিচের দিকে ও পা উপরের দিকে একটি জানালার গ্রিলে বাঁধা অবস্থায় মরদেহটি উদ্ধার করেছি। প্রাথমিকভাবে আমরা ধারণা করছি নাজমুলকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে মিলের ৯ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়। তদন্ত শেষ হওয়ার আগে এর চেয়ে বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
রাসেলস ভাইপারের কামড় খেয়ে সাপ নিয়ে হাসপাতালে কৃষক যশোরে চাঁদা না পেয়ে ৭ লাখ টাকার জাল নষ্ট করেছে সন্ত্রাসীরা আটলান্টার পিচ নিয়ে স্কালোনি-মার্তিনেজের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ‘অন্তত ১৭০ রান করা উচিত ছিল’ : শান্ত গোয়ালন্দে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, অর্থের বিনিময়ে ধামাচাপা দিতে দৌড়ঝাপ দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে দিল্লি গেলেন প্রধানমন্ত্রী কুষ্টিয়ার মিরপুরে এসএসসি ৯৯ ব্যাচের মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হলের জানালার গ্রিল বিক্রি করতে গিয়ে ধরা চবি ছাত্রলীগের সাবেক নেতা মেসির রেকর্ডে কোপার শুরুতেই আর্জেন্টিনার জয় ইতালিকে হারিয়ে নক-আউটে স্পেন মুখোমুখি অবস্থানে সরকার ও সেনাবাহিনী, বিপদে ইসরায়েল হিটস্ট্রোক চিকিৎসায় বরফ পানির সিরামিক টাব! সুইস ব্যাংকে আর বাংলাদেশিদের আগ্রহ নেই পল্টনে এক অফিস থেকে ২ যুবকের মরদেহ উদ্ধার হজের প্রথম ফিরতি ফ্লাইটে দেশে ফিরলেন ৪১৭ হাজি জ্বালনি সংক্রান্ত অভিযোগ জানাতে ৩৩৩ বৃষ্টি আইনে অস্ট্রেলিয়ার কাছে হারলো বাংলাদেশ কুষ্টিয়ায় সাংবাদিক রিজুর ওপর হামলার ঘটনায় মামলা যশোরে ভুল করে পরিত্যক্ত ককটেলে আঘাত, বিস্ফোরণে ২ শিশু আহত বন্যায় শাবিপ্রবির নতুন ৩ নির্দেশনা