পিলখানা ট্র্যাজেডির ১৪ বছর – দৈনিক গণঅধিকার

বিচারের তৃতীয় ধাপে

পিলখানা ট্র্যাজেডির ১৪ বছর

নিষ্পত্তির অপেক্ষা

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ২:৪৬
আলোচিত বিডিআর বিদ্রোহের (পিলখানা ট্র্যাজেডি) ১৪ বছর পূর্ণ হচ্ছে আজ। ২০০৯ সালের ২৫ ও ২৬ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সদর দপ্তরে বিপথগামী সদস্যরা কিছু দাবি-দাওয়া আদায়ের নামে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট ও নির্মম হত্যাযজ্ঞের মাধ্যমে তাণ্ডব চালায়। এতে ৫৭ জন সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। এ ঘটনায় হত্যা মামলার বিচার ১৪ বছরেও চূড়ান্ত নিষ্পত্তি হয়নি। বিচারিক আদালত ও হাইকোর্টের রায়ের পর মামলাটি এখন সুপ্রিমকোর্টের আপিল বিভাগে চূড়ান্ত নিষ্পত্তির অপেক্ষায় রয়েছে। আসামিপক্ষ বলছে, শুনানির জন্য আমরা প্রস্তুত রয়েছি। আর রাষ্ট্রপক্ষ বলছে, চলতি বছরেই আপিল শুনানি শুরু হতে পারে, এর জন্য উদ্যোগ নেওয়া হবে। এদিকে বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের মামলাটি বিচারিক আদালতে এখনো সাক্ষ্য পর্যায়ে রয়েছে। ২০২০ সালে হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। এরপর খালাস চেয়ে ২০৩ আসামি আপিল করেছে। আর ৮৩ জনের সাজা বৃদ্ধি চেয়ে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে লিভ টু আপিল করা হয়েছে। এখন আপিল শুনানির উদ্যোগ নিলে বিচারের মধ্য দিয়ে বিচার প্রক্রিয়া চূড়ান্তভাবে সম্পন্ন হবে। যদিও এরপর রিভিউ আবেদন করার সুযোগ থাকবে। রিভিউ আবেদন নিষ্পত্তি হওয়ার পর মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষা চেয়ে আবেদন করা ছাড়া আর কোনো সুযোগ থাকবে না। অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন গত বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমকে বলেন, সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে লিভ টু আপিল শুনানির উদ্যোগ নেওয়া হবে। চলতি বছরেই শুনানি হতে পারে। এরই মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষ আপিলের সারসংক্ষেপ জমা দিয়েছে। এক মাসের মধ্যে আপিলের সারসংক্ষেপ জমা দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আসামিপক্ষের অন্যতম আইনজীবী আমিনুল ইসলাম। তিনি শুক্রবার জানান, ‘২০২০ সালের ৮ জানুয়ারি হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশিত হয়। আবেদন করার পর সত্যায়িত কপি পাই ওই বছরের ১৩ ডিসেম্বর। রায়টি ৩০ হাজার পৃষ্ঠার, রেডি করতে অনেক সময় লেগেছে। এক সেট রায়ের কপি তুলতে ২ লাখ ৬৯ হাজার টাকা জমা দিতে হয়েছে আমাদের।’ তিনি বলেন, ‘সংবিধান অনুয়ায়ী রায়ের কপি পাওয়ার ত্রিশ দিনের মধ্যে আপিল করার বিধান রয়েছে। সে অনুযায়ী ৯ জন আসামির পক্ষে একটি পূর্ণাঙ্গ আপিল করেছিলাম ত্রিশ দিনের মধ্যে। এতে সব মিলিয়ে ১৭ থেকে ১৮ লাখ টাকা খরচ হয়। এ আপিলটি ছিল ৬৬ হাজার পৃষ্ঠার। এত টাকা খরচ করে গরিব আসামিদের পক্ষে আপিল করা সম্ভব নয় মর্মে পরে প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন করলে সেটি মঞ্জুর হয়। পরে রায়ের কপি ছাড়াই শুধু আবেদন দিয়ে ২০৩ জন আসামির পক্ষে ৪৮টি আপিল করি। এই ২০৩ জনের মধ্যে ৮২ জন মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত এবং অন্যরা যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত।’ আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘মৃত্যুদণ্ড থেকে যারা খালাস পেয়েছে এবং মৃত্যুদণ্ড থেকে যারা যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত হয়েছেন এবং যারা নিম্ন আদালতে খালাস হয়েছেন তাদের ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপক্ষ থেকে আপিল করা হয়েছে। তিনি বলেন, রাষ্ট্রপক্ষ থেকে সারসংক্ষেপ জমা দেওয়া হয়েছে। এক মাসের মধ্যে আসামিপক্ষে সারসংক্ষেপ জমা দেওয়া হবে। এরপর আপিল শুনানির জন্য চেম্বার জজ আদালত হয়ে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে যাবে। প্রধান বিচারপতি একটা বেঞ্চ গঠন করে দেবেন। সেখানেই হবে চূড়ান্ত নিষ্পত্তি। এ ঘটনায় প্রথমে রাজধানীর লালবাগ থানায় হত্যা ও বিস্ফোরক আইনে দুটি মামলা হয়। ২০১৩ সালের ৫ নভেম্বর হত্যা মামলায় ১৫২ জনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুর আদেশ দেন বিচারিক আদালত। এদের কয়েকজন ছাড়া সবাই তৎকালীন বিডিআরের সদস্য। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয় ১৬১ জনক। সর্বোচ্চ ১০ বছর কারাদণ্ডসহ বিভিন্ন মেয়াদে সাজা পান আরও ২৫৬ জন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খালাস পান ২৭৮ আসামি। সাজা হয় মোট ৫৬৮ জনের। এরপর আসামিদের ডেথ রেফারেন্স (মৃত্যুদণ্ড অনুমোদন) হাইকোর্টে আসে। সাজার রায়ের বিরুদ্ধে দণ্ডিত ব্যক্তিরা জেল আপিল ও আপিল করেন। ৬৯ জন খালাসের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রপক্ষ আপিল করে। এসবের ওপর ২০১৫ সালের ১৮ জানুয়ারি হাইকোর্টে শুনানি শুরু হয়। শেষ হয় ৩৭০তম দিনে ১৩ এপ্রিল। শুনানি শেষে ২০১৭ সালের ২৭ নভেম্বর বিচারপতি মো. শওকত হোসেন, বিচারপতি মো. আবু জাফর সিদ্দিকী ও বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের সমন্বয়ে গঠিত বৃহত্তর বেঞ্চ রায় দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের সাজা কার্যকরের অনুমতি (ডেথ রেফারেন্স) ও আপিল শুনানি শেষ হওয়ার সাত মাস পর এ রায় ঘোষণা করা হয়। রায়ে ১৩৯ জনকে মৃত্যুদণ্ড, ১৮৫ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ২২৮ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়। খালাসপ্রাপ্ত ৭৫ জনসহ ৮৩ আসামির ক্ষেত্রে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল : হাইকোর্টে খালাস পাওয়া ৭৫ জন এবং সাজা কমে যাবজ্জীবনপ্রাপ্ত ৮ আসামি মিলিয়ে ৮৩ জনের ক্ষেত্রে লিভ টু আপিল (আপিলের অনুমতি চেয়ে আবেদন) করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। বিচারিক আদালতে মৃত্যুদণ্ডাদেশের পর হাইকোর্টে খালাস পাওয়া চারজনের ক্ষেত্রে ২০২০ সালের ১৭ ডিসেম্বর আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় একটি লিভ টু আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। এরপর অপর ৭৯ জনের ক্ষেত্রে ২২ ডিসেম্বর পৃথক ১৯টি লিভ টু আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। বিস্ফোরক আইনের মামলাটি এখনো বিচারাধীন : হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় বাহিনীর নিজস্ব আইনের পাশাপাশি ফৌজদারি আইনে দুটি মামলা হয়। ২০০৯ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর লালবাগ থানায় হত্যা ও বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে এ দুটি মামলা হয়। বিস্ফোরকদ্রব্য আইনের মামলাটি এখন সাক্ষ্য পর্যায়ে রয়েছে। এ মামলার আসামিপক্ষের আইনজীবী আমিনুল ইসলাম বলেন, এ মামলায় ১২৬৪ জন সাক্ষী রয়েছে। এ পর্যন্ত মাত্র ২৫৭ জনের সাক্ষ্য হয়েছে। রাষ্ট্রপক্ষ থেকে তেমন কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না সাক্ষ্য গ্রহণের ব্যাপারে।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব হচ্ছেন ইমিরেটাস এডিটর নাঈমুল ইসলাম খান মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা কেন ‘মানবঢাল’ হিসেবে ব্যবহৃত হয় ? আবারও মূল্য বাড়লো সব ধরনের জ্বালানি তেলের র‍্যাবের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার উত্তম কুমারের দেশত্যাগে আদালতের নিষেধাজ্ঞা ২ বিষয়ে অকৃতকার্য হলেও বিশেষ শর্তে কলেজে ভর্তি হওয়া যাবে পাকিস্তানের নির্বাচন ছিল জনগণের ম্যান্ডেটের সবচেয়ে বড় ডাকাতি: ইমরান খান টেকনাফ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ‘বদি ম্যাজিকে’ জাফরের জয় ইনশাল্লাহ আমরা জয়ী হবো: মির্জা ফখরুল ডিএনএ’র স্যাম্পল দিতে কলকাতা যাচ্ছেন এমপিকন্যা ডরিন ১’লা জুন থেকে মংলা-বেনাপোল রেল রুটে ট্রেন চলবে, ভাড়া কত? সাবেক সংসদ সদস্য মনজুর কাদের বুলবুলের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক সুন্দরবনের বিভিন্ন স্থান থেকে হরিণসহ ১০০ মৃত প্রাণী উদ্ধার কুয়ালালামপুর বিমানবন্দরে কয়েক হাজার বাংলাদেশি কর্মীর ভিড় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে বজ্রসহ বৃষ্টির সম্ভাবনা দুর্নীতি মামলায় ঋতুপর্ণার নাম; ইডির তলব অনেকে আমাকে ‘লিভ ইনেও’ পাঠিয়েছেন : পায়েল জিয়াউর রহমানের কবরে বিএনপির পুষ্পস্তবক অর্পণ সরকার অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনকে জাদুঘরে পাঠিয়েছে: রিজভী বিএনপি ক্ষমতায় এসে কেনো জিয়া হত্যাকাণ্ডের বিচার করেনি, জনগণ জানতে চায় : সাঈদ খোকন সন্ধ্যায় কন্যাকুমারীতে ৪৫ ঘণ্টার ধ্যানে বসছেন মোদি, বিরোধীরা সরব