সেনা কাঁধে মাথা রেখে নওয়াজের বুকে কাকার – দৈনিক গণঅধিকার

সেনা কাঁধে মাথা রেখে নওয়াজের বুকে কাকার

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ১৪ আগস্ট, ২০২৩ | ৯:২৬ 49 ভিউ
পাকিস্তানের অষ্টম তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী হিসাবে আজ শপথ নেবেন বেলুচিস্তানের আওয়ামী পার্টির (বিএপি) সিনেটর আনোয়ার উল হক কাকার। বেলুচিস্তানের মতো ছোট্ট জায়গা থেকে রাতারাতি পুরো পাকিস্তানের কর্ণধার হয়ে ওঠা কাকারের সুশীল ভাবমূর্তির মুখোশের আড়ালে ঢাকা পড়ে আছে তার টিকে থাকার সুযোগ সন্ধানী দূরদর্শিতা। কাকার সেনাবাহিনীর বিশ্বস্ত অনুচর। ২০১৭ সালেই তা নিজ চোখে দেখেছে পাকিস্তান। তখন থেকেই দেশটির রাজনীতিতে মৃদু গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে- কাকার ক্যান্টনমেন্টের বন্ধু। সেনাবাহিনীর সঙ্গে গভীর সখ্য আছে তার। কাকার অন্তর্বর্তী প্রধান হওয়া মানে পক্ষান্তরে সেনাবাহিনীই এখন পাকিস্তানের তত্ত্বাবধায়ক সরকার। সেনাবাহিনীর কাঁধে মাথা রেখেই সেনাদোসর শাসকদলের নীতিনির্ধারক নওয়াজ শরিফের বুকে বুক মিলিয়েছেন কাকার। অথচ বনিবনা না হওয়া একসময় নওয়াজের দলও ছেড়ে আসেন কাকার। রোববার এমন ইঙ্গিতই দেওয়া হয়েছে ইসলামাবাদ ভিত্তিক দেশটির স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলোতে। সরকারের মেয়াদ শেষের মাসখনেক আগে তত্ত্বাবধায়ক প্রধানমন্ত্রী নিয়ে শোরগোলের আগেই পাকিস্তান মুসলিম লীগে যোগ দেওয়ার জন্য লন্ডনে নওয়াজ শরিফের সঙ্গে বৈঠকে বসেন কাকার। পরবর্তীতে জুন মাসে নওয়াজকন্যা মরিয়ম নেওয়াজের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন। তারপরই হুট করে অন্তর্বর্তীকালীন প্রধানমন্ত্রী। নিজের এ অবস্থানে আসতে বহু পথ পাড়ি দিতে হয়েছে তাকে। বহুবার রং বদলেছেন। ছাড়তে হয়েছে বহু দল। ইমরান খান ক্ষমতায় আসার আগে তার সঙ্গেও বেশ ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল কাকারের। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী হিসাবে ইমরান খান ক্ষমতায় আসার পরপরই হঠাৎ পালটাতে শুরু করেন তিনি। একসময়ের বন্ধুকে নিয়ে শুরু করেন নেতিবাচক মন্তব্য। পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) ক্ষমতায় এলেও পাকিস্তানের কোনো সমস্যার সমাধান করতে পারবে না- এমন মন্তব্যও করেন তিনি। এমনটি পিটিআই কর্মীদের সামরিক আদালতে বিচারেরও দাবি তোলেন তিনি। ক্ষণে ক্ষণে নিজের এমন সুবিধাবাচক আচরণে প্রশ্ন ওঠে- কাকার আপনি কার? ডন, জিইও। কাকার তত্ত্বাবধায়ক সরকার হিসাবে আলোচনায় আসার পরপরই আসন্ন নির্বাচনের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। এর প্রধান কারণ হলো তার সেনাপ্রীতি। পাকিস্তানের রাজনীতিতে ছয় বছর আগেই এই বীজ বুনেছেন তিনি। ডিসেম্বর ২০১৭ সালে, তিনি সেনা প্রেসক্রিপশনে বেলুচিস্তানে তার নিজের সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনেন এবং প্রতিপক্ষ আব্দুল কুদৌস বিজেঞ্জোকে সমর্থন করেন। আব্দুল কুদৌস বিজেঞ্জো ছয় মাসের জন্য মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। কাকার ছিলেন মন্ত্রিসভায় তথ্য উপদেষ্টা। আনোয়ার উল হক কাকার ২০১৮ সালের মার্চে পিএমএল-এন-এর সমর্থনে স্বতন্ত্র হিসাবে ছয় বছরের জন্য সিনেটর নির্বাচিত হন। কিন্তু একই মাসে তিনি পিএমএল-এন থেকে দলত্যাগকারীদের একটি দলের অংশ হয়েছিলেন, যারা পরে বেলুচিস্তান আওয়ামী পার্টি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, কাকার সদাচারী হলেও বিশ্বস্ত নন। যে ব্যক্তি সিনেটর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তার দল থেকে বিচ্যুত হয়ে নিজের প্রাদেশিক সরকারকে উৎখাত করার নেতৃত্ব দেয় তিনি কোনো দলের প্রতিনিধি হতে পারেন না। বেলুচিস্তান ন্যাশনাল পার্টির (বিএনপি-এম) চেয়ারম্যান আখতার মঙ্গল কাকারের অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে নিয়োগের বিষয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। নওয়াজ শরিফকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘আপনি এমন একজনকে নিয়োগ দিয়েছেন যার মাধ্যমে আমাদের রাজনৈতিক রাস্তা একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে।’ তিনি আরও দাবি করেছেন, এই ধরনের সিদ্ধান্ত তার দল এবং পাকিস্তানের মধ্যে আরও দূরত্ব তৈরি করবে। জোটে নতুন মেহমানে নারাজ শরিক দল : নতুন তত্ত্বাবধায়ক সরকার আনোয়ার উল হক কাকারের নিয়োগে নারাজ নওয়াজ শরিফের মুসলিম লীগ নওয়াজের শরিক দল পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি)। দলটির সিনিয়র নেতা খুরশিদ শাহ জানান, তার পরিবর্তে অন্য কাউকে নিয়োগ দেওয়া হলে ভালো হতো। এমনকি তারা কাকারের এ নিয়োগের ব্যাপারে অবগতও ছিলেন না। পাকিস্তান পিপলস পার্টি এ তালিকায় কিছু নাম আগে থেকেই চূড়ান্ত করে রেখেছিল। তাদের মধ্যে ছিলেন সেলিম আব্বাস, জলিল আব্বাস, মোহাম্মদ মালিক ও আফজাল খান। কাকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, সিনেটর কাকারকে সুষ্ঠু ও স্বচ্ছ নির্বাচন নিশ্চিত করতে হবে। কে এই আনোয়ার উল হক কাকার? : আনোয়ার উল হক কাকার বেলুচিস্তানে শিক্ষকতা দিয়ে চাকরিজীবন শুরু করে। এরপর ২০০৮ সালে পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএলকিউ) দলের মনোনীত প্রার্থী হিসাবে জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে অংশ নেন। তবে সে নির্বাচনে পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) প্রার্থীর নাসির আলী সাহের কাছে তিনি পরাজিত হন। পরবর্তীতে পিএমএলএন দলের তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী সানাউল্লাহ জেহরির মুখপাত্র হিসাবে তিন বছর কাজ করেন। ২০১৮ সালে জেহরিকে পদত্যাগে বাধ্য করে ৬ বছরের জন্য সিনেটর নির্বাচিত হন। আনোয়ার উল হক কাকার পাকিস্তানের বেলুচিস্তানের বেলুচি আওয়ামী পার্টির (বিএপি) সদস্য ছিলেন। এছাড়াও তিনি মানবসম্পদ উন্নয়ন সংক্রান্ত সিনেটের স্থায়ী কমিটির চেয়ারপারসন। ব্যবসা উপদেষ্টা কমিটির সদস্য, অর্থ ও রাজস্ব, পররাষ্ট্র এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সদস্য হিসাবেও কাজ করেছেন তিনি।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
‘নির্বাচনি প্রিমিয়ার লিগে’ একাই খেলছেন পুতিন কুষ্টিয়ার মঙ্গলবাড়িয়ায় পিতা-পুত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার খোকসায় একাধিক মামলা থাকা সত্ত্বেও চলছে ভেজাল গুড়ের কারখানা খোকসায় চলছে ভেজাল গুড়ের কারখানা আদালত বর্জন বিএনপির আইনজীবীদের রাজনৈতিক স্ট্যান্টবাজি: আইনমন্ত্রী বৃহস্পতিবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী কুষ্টিয়ার স্বনামধন্য ইংলিশ প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। স্বনামধন্য ইংলিশ প্রতিষ্ঠান CEL এর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠিত ভূ-রাজনীতির ফাঁদে বাংলাদেশ শায়েস্তাগঞ্জ পূজা উদযাপন সাড়ে ১০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি ওসির! ইসরাইলের অভিযান নিয়ে যা বললেন পুতিন বেরিয়ে আসছে ব্যাটারদের হতশ্রী চেহারা নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটের হার উন্নয়নের কারণে আমরা উন্নত জীবন যাপন করতে পারছি: শিক্ষামন্ত্রী মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণসহ চার অগ্রাধিকার নীতি ঘোষণা চালকের কিস্তি আর সংসারের চাকা ঘুরাল ‘টিম পজিটিভ বাংলাদেশ’ রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দেওয়ার পরিণতি ভালো হয় না: ফখরুল পিটার হাসের বক্তব্যের প্রতিবাদে যা বললেন সাংবাদিকনেতারা ‘কোনো চুক্তিতে দেশে ফিরছেন না নওয়াজ শরিফ’ পদার্থে নোবেল পেলেন ৩ জন ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট দমনে কঠোর অবস্থানে সরকার: বাহাউদ্দিন নাছিম