১৫০ ভরি স্বর্ণ গায়েবের ঘটনায় কিছু করার নেই বললেন ইসলামী ব্যাংক কর্মকর্তা – দৈনিক গণঅধিকার

১৫০ ভরি স্বর্ণ গায়েবের ঘটনায় কিছু করার নেই বললেন ইসলামী ব্যাংক কর্মকর্তা

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ২ জুন, ২০২৪ | ১০:৩৪
চট্টগ্রামে ইসলামী ব্যাংক চকবাজার শাখার লকার থেকে গ্রাহকের এক কোটি ৭৪ লাখ টাকা মূল্যের ১৫০ ভরি স্বর্ণ গায়েবের ঘটনায় কিছু করার নেই বললেন ইসলামী ব্যাংক কর্মকর্তা। বিষয়টি নিয়ে ইতোমধ্যেই ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। এই নিয়ে ব্যাংকটির শীর্ষ কর্মকর্তার দাবি, গ্রাহক মিথ্যা অভিযোগ দিচ্ছেন। লকার থেকে সোনা চুরি, ডাকাতি কিংবা গায়েব হওয়ার কোনও সুযোগ নেই। যদিও এর কোনোটি হয়ে থাকে এর বিনিময়ে তবে গ্রাহক ইন্স্যুরেন্স অনুযায়ী দুই লাখ টাকা পাবেন। তবে গ্রাহকের অভিযোগ, ব্যাংকের কর্মকর্তা/কর্মচারীরাই এ স্বর্ণ গায়েবের সঙ্গে জড়িত। তিনি স্বর্ণ উদ্ধারের পাশাপাশি এর সঙ্গে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেন। এদিকে, লকার থেকে স্বর্ণ গায়েবের খবরে রবিবার (২ জুন) সকাল থেকে ইসলামী ব্যাংক চকবাজার শাখায় ভিড় করেন গ্রাহকরা। যেসব গ্রাহক এই শাখায় লকার ব্যবহার করেন তাদের মূল্যবান জিনিসপত্র রক্ষিত আছে কি না তা খতিয়ে দেখেন। নজরুল ইসলাম নামে এক গ্রাহক বলেন, ‘আমি এ ব্যাংকে লকার ব্যবহার করি। লকারে স্বর্ণ-গহনাসহ বেশ কিছু মূল্যবান জিনিসপত্র রয়েছে। লকার থেকে এক গ্রাহকের স্বর্ণ গায়েব হয়েছে- এমন খবর পেয়ে ব্যাংকে রক্ষিত জিনিসপত্র ঠিক আছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে এসেছি। মানুষের কাছে নিরাপত্তা এবং আস্থার সর্বশেষ স্থল হচ্ছে ব্যাংক। যদি ব্যাংক থেকে স্বর্ণ-টাকা গায়েব বা উধাও হয়ে গেছে শোনা যায় তাহলে মানুষ তাদের জিনিসপত্র কোথায় নিয়ে রাখবে?’ এ ঘটনা তদন্ত করে জড়িতদের কঠিন আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছেন তিনি। ইসলামী ব্যাংক চকবাজার শাখার ম্যানেজার এস এম শফিকুল মাওলা চৌধুরী বলেন, ‘গত ২৯ মে (বুধবার) রোকেয়া আক্তার বারী নামে আমাদের এক গ্রাহক তার লকার চেক করার পর অভিযোগ করেন, তার লকারে রাখা জিনিসপত্র ঠিকমতো পাননি। এরপর গ্রাহক মৌখিকভাবে অভিযোগ করেন, লকার থেকে ১৫০ ভরি স্বর্ণ মিসিং (নাই) হয়েছে। গ্রাহককে বলেছি, এ বিষয়ে আমাদের কিছুই করার নেই। গ্রাহক কী রেখেছেন তা গ্রাহক ভালো জানেন। আমার মনে হচ্ছে, স্বর্ণ মিসিং সংক্রান্ত অভিযোগটি মিথ্যা। লকার থেকে স্বর্ণ চুরি, ডাকাতি কিংবা গায়েব হওয়ার কোনও সুযোগ নেই। লকারে গ্রাহক কী রাখছেন তা জানার আমাদের সুযোগ নেই।’ ‘তবে লকারে দাহ্য পদার্থ ও আগ্নেয়াস্ত্র না রাখার বিষয়ে আমরা ডিক্লারেশন নিয়ে থাকি। অন্য জিনিসের বিষয়ে ডিক্লারেশন নেওয়ার নিয়ম নেই। লকার সংক্রান্ত বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সব সার্কুলার মেনেই আমাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকি’- যোগ করেন এই কর্মকর্তা। ব্যাংকটির এই কর্মকর্তা বলেন, ‘লকারের পর্যাপ্ত সিকিউরিটি আমরা নিয়ে থাকি। গ্রাহক যে লকার ব্যবহার করেন তার একটি চাবি গ্রাহকের কাছেই গচ্ছিত থাকে। আরেকটি চাবি লকার ম্যানেজারের কাছে রক্ষিত থাকে। ওই মাস্টার চাবি দিয়ে সব লকার খোলা যায়। এরপরও গ্রাহকের মৌখিক অভিযোগের বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জানিয়েছি। ইসলামী ব্যাংক চট্টগ্রাম আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটি ইতিমধ্যে কাজ শুরু করেছে। প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ যদি গ্রাহক রোকেয়া আক্তার বারীর অভিযোগ সঠিক হয়, অর্থাৎ ব্যাংকের লকার থেকে যদি স্বর্ণালংকার গায়েব বা উধাও হওয়ার ঘটনা ঘটে সেক্ষেত্রে তিনি ক্ষতিপূরণ পাবেন কিনা? এমন প্রশ্নে ব্যাংক ম্যানেজার এস এম শফিকুল মাওলা চৌধুরী বলেন, ‘প্রত্যেক লকার ব্যবহারকারীর ইন্স্যুরেন্স করা আছে। এখানে তিন ধরনের লকার আছে। ছোট, মাঝারি ও বড়। এর মধ্যে ইন্স্যুরেন্স অনুযায়ী ছোট লকার ব্যবহারকারীরা এক লাখ টাকা, মাঝারি লকার ব্যবহারকারীরা দুই লাখ টাকা ও বড় লকার ব্যবহারকারীরা তিন লাখ টাকা করে ইন্স্যুরেন্স থেকে পাবেন। গ্রাহক রোকেয়া মাঝারি আকারের লকার ব্যবহার করেন। তিনি দুই লাখ টাকা ইন্স্যুরেন্স সুবিধা পাবেন।’ এ প্রসঙ্গে অগ্রণী ব্যাংক চকবাজার কাপাসগোলা শাখার ম্যানেজার মো. জসিম উদ্দিন বলেন, ‘কোনও গ্রাহক স্বর্ণালংকার বা কোনও গুরুত্বপূর্ণ কিছু রাখার জন্য ব্যাংকের লকার ব্যবহার করে থাকেন। লকার ব্যবহারে গ্রাহকের সঙ্গে যে চুক্তি হয় সেখানে দাহ্য পদার্থ বা আগ্নেয়াস্ত্র রাখবে না উল্লেখ থাকে। চুক্তি মেনে লকার ব্যবহারকারী গ্রাহক সেখানে কী রাখেন তা গ্রাহকের একান্ত মর্জি। লকারে স্বর্ণ, জমির দলিলপত্র নাকি অন্য কিছু রাখছেন তা ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানেন না। ব্যাংক কর্তৃপক্ষকে জানাতে হবে তাও বাধ্য নন গ্রাহক। আবার গ্রাহক কী রাখছেন তা জানাতে হবে সে সম্পর্কে ব্যাংক কর্তৃপক্ষের বাধ্যবাধকতা নেই। লকারের দুটি চাবি থাকে। একটি থাকে গ্রাহকের কাছে অপর চাবি থাকে লকার ম্যানেজারের কাছে। তবে লকারে রাখা আমানত খোয়া গেলে ইন্স্যুরেন্স বাবদ কত টাকা পাবেন তা আমার জানা নেই।’ এ প্রসঙ্গে অগ্রণী ব্যাংকের চেয়ারম্যান ডক্টর জায়েদ বখত বলেন, ‘ব্যাংকের স্বর্ণালংকার রাখলে সেটি চুরি বা ডাকাতি হলে সাধারণত ব্যাংক কর্তৃপক্ষ দায় নিতে চায় না। তবে স্বর্ণালংকারের ইন্স্যুরেন্স করা থাকলে সেই অনুযায়ী ক্ষতিপূরণ পেতে পারে।’ এ প্রসঙ্গে রোকেয়া আক্তার বারী বলেন, ‘আমার পারিবারিক স্বর্ণালংকার নিরাপত্তার জন্য ব্যাংকের লকারে রেখেছি। এখানে ১৬০ ভরি স্বর্ণালংকার ছিল। এ স্বর্ণগুলো আমার দুই ছেলের স্ত্রী, আমার মেয়ে ও আমার নিজের ছিল। এর মধ্যে ১৫০ ভরির মতো গায়ের হয়েছে। লকারে ছিল মাত্র ১০ থেকে ১১ ভরির মতো স্বর্ণ। এগুলো গায়েব হওয়ার পেছনে ব্যাংক কর্মকর্তারাই দায়ী। লকারের চাবি আমারটা আমার কাছে থাকে। আরেকটা ব্যাংক কর্তৃপক্ষের কাছে থাকে। আমি লকারটা খোলা অবস্থায় পেয়েছি।’ তিনি ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলেন, ‘গত ২৯ মে দুপুরে আমি চকবাজার ইসলামী ব্যাংকের শাখায় যাই। বেশ কয়েক বছর ধরে আমি এ শাখায় লকার ব্যবহার করে আসছি। লকার ম্যানেজারকে বলি, আমার লকার খুলবো। কিছু জিনিস রাখবো, কিছু নেবো। প্রথমে লকার ম্যানেজার ভেতরে ঢোকেন। তিনি জিজ্ঞেস করেন, আমার লকার নম্বর কত? জানাই, ৪৪। তখন লকার ম্যানেজার বলেন, আপনার লকার তো খোলা। আমিও সামনে গিয়ে দেখি খোলা। এমন অবস্থা দেখে আমার ওপর যেন আকাশ ভেঙে পড়লো। আমি লকারে হাত ঢুকিয়ে দেখি যেসব বাক্স ছিল অধিকাংশই নেই। ৭-৮টি বাক্স পাওয়া গেছে। এর মধ্যে দুটিতে অল্প পরিমাণ স্বর্ণ পাওয়া গেছে। যার পরিমাণ ১০ থেকে ১১ ভরি হতে পারে। সেদিন ব্যাংকের ম্যানেজার ছুটিতে ছিলেন। আমার চিৎকার শুনে ব্যাংকের সেকেন্ড, থার্ড অফিসারসহ অন্যরা দৌড়ে আসেন। আমি বললাম, আমার স্বর্ণ কোথায় গেছে আপনারা বের করে দেন। তখন কর্মকর্তারা বলেন, আমরা কোথা থেকে দেব? আমি বলেছি যদি লকারের জিনিসপত্রের নিরাপত্তা দিতে না পারেন তাহলে আমার জিনিস রেখেছেন কেন? আমি আমার স্বর্ণ ফেরত চাই।’ চট্টগ্রামের চকবাজার শাখার এই গ্রাহক বলেন, ‘বাসায় অনিরাপদ মনে করে, লকার ভাড়া নিয়ে এসব স্বর্ণ রেখেছি শুধুমাত্র নিরাপত্তার জন্য। এখন লকার থেকে গায়েব হওয়ার ঘটনা আমাদেরকে সত্যি মর্মাহত করেছে। ব্যাংকের প্রতি আস্থার সংকট সৃষ্টি করেছে।’ ভুক্তভোগী নারীর ছেলে রিয়াদ মোহাম্মদ মারজুক বলেন, ‘ব্যাংকের লকার থেকে স্বর্ণালংকার গায়েব হওয়ার ঘটনা আশ্চর্যজনক। মানুষ নিরাপত্তার জন্য ব্যাংকের লকারে জিনিসপত্র রাখেন। এখন দেখছি, ব্যাংকের লকার থেকেও স্বর্ণ গায়েব হয়েছে। আমাদের গায়েব হওয়া স্বর্ণ ফেরত চাচ্ছি। এর সঙ্গে জড়িতদের বিচার দাবি জানাচ্ছি। এ ঘটনায় আমার পরিবারের পক্ষ থেকে আদালতে মামলা করা হবে।’ চকবাজার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ওয়ালী উদ্দিন আকবর বলেন, ‘বিষয়টি ২৯ মে আমাকে মৌখিকভাবে জানিয়েছিলেন স্বর্ণের মালিক। সঙ্গে সঙ্গে ব্যাংকে গিয়ে খোঁজখবর নিয়েছি। তবে এখন পর্যন্ত ব্যাংকের লোকজন কিংবা ভুক্তভোগী থানায় মামলা করতে আসেননি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’ এ প্রসঙ্গে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক) চট্টগ্রামের সভাপতি অ্যাডভোকেট আখতার কবির চৌধুরী বলেন, ‘ব্যাংকের লকারে যখন কোনও জিনিস রাখা হয় তখন সেটি ওজন করে রাখা হয় কিনা কিংবা লকারে কী রাখা হয়েছে এবং লকার থেকে ব্যবহারকারী কী নিয়ে যাচ্ছেন তা ব্যাংক কর্তৃপক্ষ এন্ট্রি রাখেন কিনা তা আমার জানা নেই। ব্যাংককে নিরাপদ মনে করেন বিধায় মানুষ লকারে স্বর্ণালংকার, টাকাসহ গুরুত্বপূর্ণ জিনিসপত্র রাখেন। মানুষ টাকা দিয়ে ব্যাংকে কিংবা লকারে রাখেন- যাতে তার জিনিসগুলো নিরাপদে থাকে। গ্রাহকের ১৫০ ভরি স্বর্ণ গায়েব হওয়ার বিষয়টি দুঃখজনক। এখন মানুষের বিশ্বাস, ভরসা ও নিরাপত্তার জায়গা আর নিরাপদ থাকলো না। ব্যাংকের উচিত এর সত্যতা উদঘাটন করা। এর সঙ্গে যারাই জড়িত তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা করা। এমনকি ব্যাংকের সুনাম ঐতিহ্যের স্বার্থে এ ঘটনা উদঘাটন করা জরুরি। বাংলাদেশ ব্যাংকের উচিত বিষয়টিকে গুরুত্বসহকারে দেখা।’

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
সাতক্ষীরায় স্ত্রীকে হত্যার দায়ে স্বামীর যাবজ্জীবন খুলনায় যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা আবেদ আলীর ছেলে সিয়ামকে উপজেলা ছাত্রলীগ থেকে অব্যাহতি সঠিকভাবে রোগ নির্ণয় না হওয়ায় দেশের অর্ধেক রোগী বিদেশে চলে যান : স্বাস্থ্যমন্ত্রী মাদারীপুরে দুই শিশুর রহস্যজনক মৃত্যু; আটক মা ২ শ্রমিককে পিটিয়ে হত্যার অপরাধে মধুখালীতে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারকে অপসারণ চন্দনা কমিউটার ট্রেনের স্টপেজ পেলো ফরিদপুর ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে লিফটের জন্য ব্যাপক ভোগান্তি পাবিপ্রবিতে কোটা সংস্কার দাবিতে শিক্ষার্থীদের মশাল মিছিল দৌলতদিয়ায় বিপৎসীমা ছুঁই ছুঁই করছে পদ্মার পানি বালিয়াকান্দিতে স্কুলের সামনে ইজিবাইকচাপায় ছাত্রী নিহত বেনাপোলে ১৮ টি সোনার বারসহ আটক ১ চুয়াডাঙ্গা সীমান্তে বিজিবির অভিযানে ৮ টি সোনার বারসহ যুবক আটক আবারও কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ ইবি শিক্ষার্থীদের ভারতে কারাভোগ শেষে দেশে ফিরেছে ১৩ কিশোর-কিশোরী বেনাপোল সীমান্তে ৯টি সোনার বারসহ আটক ১ যশোরে ‘জিন সাপ’ আতঙ্ক, হাসপাতালে ভর্তি ১০ লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২১৬ কোটি টাকা বেশি রাজস্ব আয় বেনাপোল কাস্টমসে যশোরে সিজার অপারেশন করলেন নাক কান গলার চিকিৎসক কোটা সংস্কারের দাবিতে ফের কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ ইবি শিক্ষার্থীদের