‘বকশিশ’ ছাড়া নথি নড়ে না ঢাকার আদালতপাড়ায় – দৈনিক গণঅধিকার

৩৪টি কোর্টের জন্য এজলাস ২৩ টি

‘বকশিশ’ ছাড়া নথি নড়ে না ঢাকার আদালতপাড়ায়

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৮ জুন, ২০২৪ | ১০:২৯
সাভারের একটি গার্মেন্টসে চাকরি করেন মধ্যবয়সী মর্জিনা বেগম। হেমায়েতপুর আর্জেন্টপাড়ায় পরিবার নিয়ে ভাড়া করা বাসায় থাকেন। মর্জিনার স্বামী নুরুল ইসলামের কাছ থেকে ১৩ হাজার টাকা ধার নেন দূরসম্পর্কের আত্মীয় রিকশাচালক রুবেল। দীর্ঘদিনেও টাকা ফেরত না দেওয়ায় এক দিন সন্ধ্যায় রুবেলের জামার কলার চেপে ধরেন নুরুল ইসলাম। প্রতিশোধ নিতে পরদিন মর্জিনার বিরুদ্ধে সাভার থানায় অপহরণের অভিযোগ এনে মামলা করেন রুবেল। ২০১৯ সালে গ্রেপ্তার হয়ে এক বছর তিন মাস জেল খাটেন মর্জিনা। তিনি নিয়মিত হাজিরা দিচ্ছেন ঢাকার আদালতে। এক বছর ধরে মামলার বাদীর খোঁজ নেই। তাই অভিযোগ গঠন হচ্ছে না। শুধু মর্জিনা নন, অসংখ্য বিচারপ্রার্থী বছরের পর বছর ঘুরছেন ঢাকার আদালতপাড়ায়। নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনায় এখানে প্রতিনিয়তই ভোগান্তিতে পড়তে হয় বিচারপ্রার্থীদের। আইনজীবীদের অভিযোগ, সিএমএম আদালত, মহানগর আদালত ও জেলা জজ আদালত সময়মতো বসে না। সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসনের নির্দেশনা অনুযায়ী সকাল ৯টায় বসার কথা থাকলেও বসে ১১টায়। আদালতে মামলা বদলি নিয়ে এক ধরনের নৈরাজ্য চলছে। কোন মামলা বিচারের জন্য কোন আদালতে বদলি করা হয়েছে, তা জানা কষ্টসাধ্য। মামলায় সময়ক্ষেপণ, মামলার নথি দেখানোর নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, ওকালতনামায় স্বাক্ষরে টাকা আদায়, জামিননামা তোলাসহ নানা অজুহাতে বিচারপ্রার্থীর কাছ থেকে টাকা আদায়– এসব ভোগান্তি লেগেই থাকে। আদালতপাড়ায় ঘুরে জানা যায়, অধিকাংশ আদালতের পেশকার, জিআরও, পুলিশ, পিয়নকে ঘুষ দেওয়া ছাড়া কোনো কাজই হয় না। ‘বকশিশ’ না দিলে মামলার নথি নড়ে না। তবে দুর্ভোগের সবচেয়ে বড় কারণ, বছরের পর বছর মামলা ঝুলে থাকা। আইনজীবী আশরাফ-উল আলম প্রতিবেদককে বলেন, নির্দিষ্ট সময়ে আদালত বসলে বিচারপ্রার্থীর দুর্ভোগ অনেক কমে যাবে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে উচ্চ আদালতের নির্দেশনা আছে, ১৮০ দিনের মধ্যে মামলা নিষ্পত্তি করার। পারিবারিক আদালতের মামলা ছয় মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির বিধান আছে। কিন্তু বিচারিক আদালতে তা অনুসরণ করা হয় না। জানা গেছে, চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতেও এজলাস ভাগাভাগি করে কার্যক্রম পরিচালনা করতে হচ্ছে। এখানে ৩৪টি কোর্ট থাকলেও এজলাস আছে মাত্র ২৩টি। এ জন্য মামলা নিষ্পত্তিতে দীর্ঘ সময় লাগছে। মামলার বিচার কার্যক্রমের পাশাপাশি আদালতের প্রশাসনিক অব্যবস্থাপনারও ঘাটতি আছে। সেরেস্তা, রেকর্ড রুম ও নকলখানা পর্যাপ্ত নয়। বিচারপ্রার্থীদের জন্য বিশুদ্ধ পানি, বিশ্রামাগার ও পর্যাপ্ত টয়লেট নেই। ঢাকা আইনজীবী সমিতির সভাপতি আবদুর রহমান হাওলাদার জানান, তারা বিচারপ্রার্থীর ভোগান্তি কমানোর চেষ্টা করছেন। আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান মামুন বলেন, কোনো মামলায় চার্জশিট দাখিলের পর বিচার শুরু হয়ে যায়। এর পর তদন্ত কর্মকর্তা যখন ঢাকার বাইরে বদলি হয়ে যান, তখন সাক্ষীর জন্য ডাকা হলে তিনি আর যথাসময়ে আসেন না। ঢাকা মহানগর জজ আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু বলেন, আদালতে কিছু সমস্যা আছে, সেগুলো সামগ্রিকভাবে সমাধানের চেষ্টা করা হচ্ছে।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
জাকারিয়া সৌখিনের ‘লাভ রেইন’; অভিনয়ে তৌসিফ-নীহা সুপ্রিম কোর্ট বারের চেম্বার রাত ৮টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে সাকিব-তামিমের বন্ধুত্বে ফাটলের নেপথ্যে জামালপুর থেকে রেলযোগে ঢাকা আনতে গরুপ্রতি খরচ হচ্ছে ৫০০ টাকা ৩ ম্যাচের টানা সুপার এইটে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ অটোরিকশা চালকের চাঁদাবাজি মামলায় লক্ষীপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কারাগারে ‘সাকিব ভাইয়ের পারফরম্যান্স নিয়ে দলের কেউ চিন্তিত নয়’ : শান্ত আমরা বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বকে সম্মান করি আলমডাঙ্গায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় গরু ব্যবসায়ী নিহত মেহেরপুরে জমে উঠেছে শতবর্ষী বারাদী ছাগলের হাট সকালে হাইকোর্টে জামিন, বিকেলে স্থগিত জনসভায় মোদিকে খোঁচা দিয়ে রাহুল : ‘আমার ঈশ্বর জনগণ’ ফেনীতে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী থানায় হাজির ত্রিশালে আন্তঃজেলা চোর চক্রের ৬ জন আটক মেহেরপুরে কাজীপুর সীমান্তে কৃষককে পিটিয়েছে বিএসএফ ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে চসিকের দুই প্রকৌশলী ওএসডি ওয়াশিংটন অ্যাকর্ডের সিগনেটরি স্বীকৃতি আইইবির কুষ্টিয়ায় বিল থেকে চুরি হওয়া শিশুর মরদেহ উদ্ধার আমরা ভারতের বিপক্ষে শক্ত লড়াই করতে যাচ্ছি : জোন্স দেশের কারাগারে ৩৬৩ বিদেশির বেশিরভাগই ভারতের: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী