খরায় মারাত্নক ক্ষতিগ্রস্ত চুয়াডাঙ্গার কৃষি ও ফসল – দৈনিক গণঅধিকার

খরায় মারাত্নক ক্ষতিগ্রস্ত চুয়াডাঙ্গার কৃষি ও ফসল

ডেস্ক নিউজ
আপডেটঃ ৭ জুন, ২০২৪ | ১০:১৭
সাম্প্রতিক বছরগুলোর তীব্র তাপদাহের ফলে সৃষ্ট খরায় চুয়াডাঙ্গা জেলার কৃষি ও ফসলের মারাত্মক ক্ষতি হয়েছে। বাড়তি খরচ, উৎপাদন ঘাটতিসহ চাষাবাদ উপযোগী পরিবেশের উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ায় কয়েক বছর ধরেই ক্ষতির মুখে পড়ছেন কৃষকরা। এসব পরিস্থিতি মোকাবেলায় সময়পযোগী পদক্ষেপ নেয়ার দাবী তুলেছে কৃষক সংগঠনের নেতারা। চুয়াডাঙ্গা জেলা আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে, চলতি বছর এপ্রিল মাসের শুরু থেকে চুয়াডাঙ্গা জেলায় একটানা ৩৭ দিন তাপপ্রবাহ বয়ে যায়। এরমধ্যে জেলার ইতিহাসে সর্বোচ্চ ৪৩ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় চুয়াডাঙ্গা। মার্চ মাসেও অন্তত ১১ দিন তাপমাত্রা ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের উপরে রেকর্ড হয়। এ অবস্থা চলছে গত কয়েক বছর থেকে। এতে জেলাজুড়ে খরার প্রভাব দেখা দিয়েছে। কৃষকরা বলছেন, গ্রীষ্ম মৌসুমে তাপপ্রবাহের ফলে চুয়াডাঙ্গা জেলার পানির স্তর নিচে নেমে যাচ্ছে। এতে বৃষ্টি পানির বিকল্প ভূগর্ভস্ত পানিও পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে চাষাবাদে বাড়তি খরচ যোগ হচ্ছে। বিশেষ করে বোরো মৌসুমে ধান ও সবজি চাষে বাড়তি খরচের পাশাপাশি ফলন বিপর্যয় কৃষকদের দুর্ভোগে ফেলে দিচ্ছে। দামুড়হুদা উপজেলার কৃষক আব্দুল মান্নান বলেন, এ বছর তিনি সাত বিঘা জমিতে বোরো ধানের আবাদ করেছেন। তীব্র তাপের কারণে সেচ ও ওষুধ কিনতে বিঘাপ্রতি বাড়তি ৬০০ টাকা খরচ হয়েছে। অন্যদিনে ধানের ফলন কমেছে বিঘার অন্তত সাত মণ। এতে তার কোনো রকমে উৎপাদন খরচ উঠে এসেছে। তীব্র তাপে ধানে চিটা হওয়ায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। একই অবস্থার বর্ণনা দেন চাষী এনামুল জোয়ার্দ্দার ও বাবু বিশ্বাস। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার আলোকদিয়া গ্রামের কৃষক লিটন হোসেন ও নাসির বিশ্বাস বলেন, এপ্রিল-মে মাসের তাপে তাদের গ্রীষ্মকালীন সবজি ও আমের ফলন কমে গিয়েছে। পাটের খেতেও একই অবস্থা। কয়েকদিন পর পাট জাগ দিতে হবে। মাঠে-ঘাটে কোথাও পানি নেই। এই দুশ্চিয়ায় এখন থেকেই তাদের দিন কাটছে। কৃষকের এ অবস্থায় কৃষি বিভাগ অবশ্য ভিন্ন কথা বলছে। তাদের দাবি তাপদাহের ফলে বাড়তি সেচ খরচ হলেও ফলনে কোনো প্রভাব পড়েনি। চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, এ বছর চুয়াডাঙ্গা জেলায় ৩৪ হাজার ৮০০ হেক্টর জমিতে ২ লাখ ২৯ হাজার ৬৮০ মেট্রিকটন ধানের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। যার বিপরীতে ৩৫ হাজার ৭২০ হেক্টর জমিতে ২ লাখ ৩৫ হাজার ৭৫২ মেট্রিকটন ধান উৎপাদন হয়েছে। অন্যদিকে ৪৯ হাজার ৪২০ হেক্টর জমিতে ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৪০ মেট্রিকটন ভুট্টার লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। যার বিপরীতে ৪৯ হাজার ৬৬৫ হেক্টর জমিতে ৫ লাখ ৭৭ হাজার ৩৫৫ মেট্রিকটন ভুট্টা উৎপাদন হয়েছে। এছাড়া, ১৬ হাজার ৫৭৮ হেক্টর জমিতে ৭ হাজার ৪৬০ মেট্রিকটন পাটের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হয়। এর বিপরীতে ৪৩ হাজার ৬০০ হেক্টর জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে। যার অর্জন কিছুদিন পর জানা যাবে। কৃষি বিভাগের হিসাবে সবজি চাষেও জেলার কৃষকরা অনেকাংশে সফল। সবজিতেও লক্ষমাত্রার বেশি সবজি উৎপাদন হয়েছে। এ বছর চুয়াডাঙ্গা জেলায় ৩ হেক্টর ৪৩৯ জমিতে ৭৬ হাজার ৮৭৭ মেট্রিকটন ফুলকপি, ২ হাজার ৪০৫ হেক্টর জমিতে ৫৫ হাজার ৩১৫ মেট্রিকটন বাঁধাকপি ও ৮৩৯ হেক্টর জমিতে ২৬ হাজার ৮৪৮ মেট্রিকটন লাউ উৎপাদন হয়েছে। এছাড়া বর্তমানে মাঠে থাকা আম ও পেঁয়ারাতেও বাড়তি ফলন হবে, দাবী কৃষি বিভাগের। তাদের মতে, এবছর চুয়াডাঙ্গায় ২ হেক্টর ৩০৪ জমিতে আম ও ১ হেক্টর ৮৭২ জমিতে পেঁয়ারা আবাদের লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা আছে। সম্প্রতি একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থার এক সমীক্ষায় উঠে এসেছে ভিন্ন চিত্র। তাদের মতে চলতি বছর চুয়াডাঙ্গা জেলা কৃষকরা ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। সমীক্ষায় বলা হয়েছে, চুয়াডাঙ্গা জেলায় কৃষিখাতে অন্তত ৩৬৩ কোটি টাকার ক্ষতি হতে পারে। এছাড়া তাপপ্রবাহের ফলে এ জেলায় জীবন-জীবিকায় অন্তত ২০০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ অবস্থায় আগামীতে সঠিক সময়ে চাহিদা মতো চাষাবাদ কৃষকদের জন্য নতুন প্রতিকূলতার সৃষ্টি করবে বলে চুয়াডাঙ্গার কৃষক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ মনে করছেন। চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা কৃষক জোটের সভাপতি রবিউল হক বলেন, চুয়াডাঙ্গা জেলা বছরব্যাপি ফসল উৎপাদনের জেলা হিসেবে পরিচিত। বর্তমান পরিস্থিতিতে চুয়াডাঙ্গা ও আশপাশের জেলাগুলোতে গ্রীষ্ম মৌসুমের চাষাবাদ ঝুঁকির মুখে পড়বে। তাপদাহে সৃষ্ট খরায় একদিকে কৃষকের খরচ বাড়ছে। অন্যদিকে ফলন কমে আসছে। কৃষক নেতা রবিউল হক দাবী করেন, আগামীতে কৃষিক্ষেত্রে খরাসহিষ্ণু জাত নির্বাচন ও মাটির উপরিভাগের পানি ব্যবহার বৃদ্ধির মাধ্যমে কৃষককে বাঁচাতে হবে। অন্যথায় মারাত্মক হুমকির মুখে পড়বে এ অঞ্চলের কৃষি। চুয়াডাঙ্গা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বিভাস চন্দ্র সাহা বলেন, তাপপ্রবাহের কারণে চুয়াডাঙ্গার কৃষিতে বাড়তি সেচ খরচ লাগলেও উৎপাদন ঘাটতির আশংকা করছেন না তারা। তবে আগামীতে খরাসহিষ্ণু জাত নির্বাচনসহ সময়পযোগী পদক্ষেপ নিতে কর্তৃপক্ষের কাছে তারা বরাবরই তথ্য প্রেরণ করছেন।

দৈনিক গণঅধিকার সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ট্যাগ:

সংশ্লিষ্ট সংবাদ:


শীর্ষ সংবাদ:
জাকারিয়া সৌখিনের ‘লাভ রেইন’; অভিনয়ে তৌসিফ-নীহা সুপ্রিম কোর্ট বারের চেম্বার রাত ৮টার মধ্যে বন্ধ করতে হবে সাকিব-তামিমের বন্ধুত্বে ফাটলের নেপথ্যে জামালপুর থেকে রেলযোগে ঢাকা আনতে গরুপ্রতি খরচ হচ্ছে ৫০০ টাকা ৩ ম্যাচের টানা সুপার এইটে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজ অটোরিকশা চালকের চাঁদাবাজি মামলায় লক্ষীপুরে স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা কারাগারে ‘সাকিব ভাইয়ের পারফরম্যান্স নিয়ে দলের কেউ চিন্তিত নয়’ : শান্ত আমরা বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বকে সম্মান করি আলমডাঙ্গায় যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় গরু ব্যবসায়ী নিহত মেহেরপুরে জমে উঠেছে শতবর্ষী বারাদী ছাগলের হাট সকালে হাইকোর্টে জামিন, বিকেলে স্থগিত জনসভায় মোদিকে খোঁচা দিয়ে রাহুল : ‘আমার ঈশ্বর জনগণ’ ফেনীতে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা করে স্বামী থানায় হাজির ত্রিশালে আন্তঃজেলা চোর চক্রের ৬ জন আটক মেহেরপুরে কাজীপুর সীমান্তে কৃষককে পিটিয়েছে বিএসএফ ঘুষ গ্রহণের অভিযোগে চসিকের দুই প্রকৌশলী ওএসডি ওয়াশিংটন অ্যাকর্ডের সিগনেটরি স্বীকৃতি আইইবির কুষ্টিয়ায় বিল থেকে চুরি হওয়া শিশুর মরদেহ উদ্ধার আমরা ভারতের বিপক্ষে শক্ত লড়াই করতে যাচ্ছি : জোন্স দেশের কারাগারে ৩৬৩ বিদেশির বেশিরভাগই ভারতের: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী